বিশ্বজিৎ ঘোষ, কলকাতা: ইকোসিস্টেমের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য যেমন রাস্তার সারমেয়দের রক্ষা করা প্রয়োজন৷ তেমনই, রাস্তার সারমেয়দের চিকিৎসার ব্যবস্থা হলে মানুষও সুস্থ থাকবে৷ অথচ, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের হত্যা চলছে নির্বিচারে৷ শুধুমাত্র তাই নয়৷ বেশি সংখ্যক রাস্তার সারমেয়কে হত্যার বিনিময়ে মিলছে সোনার মুদ্রা-ও!

আরও পড়ুন: সন্তানের পরিচয় জানাতে প্রথমেই আসুক মায়ের নাম!

যদিও, রাস্তার সারমেয়দের রক্ষার জন্য আইন রয়েছে৷ তার উপর, সুপ্রিম কোর্টে গত বছরের এক মামলার জেরে রয়েছে শীর্ষ আদালতের নির্দেশ৷ এমনকী রাস্তার সারমেয়দের সুরক্ষায় বরাদ্দ হয় সরকারি অর্থ-ও৷ অথচ, এমন বিভিন্ন বিষয়কে উপেক্ষা করে দক্ষিণ ভারতের ওই রাজ্যে চলছে রাস্তার সারমেয়দের কার্যত নিশ্চিহ্নের কাজ৷ যে কাজে আবার কেরলের প্রভাবশালী এক ব্যবসায়ীর ইন্ধন রয়েছে বলেও অভিযোগ উঠছে৷ আর, তাই, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের রক্ষার জন্য এ বার দেশের বিভিন্ন প্রান্তের সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের হাত শক্ত করার কাজ করছে কলকাতা৷

আরও পড়ুন: মানুষের খাদ্য হিসেবে নিখোঁজ হচ্ছে রাস্তার সারমেয়রা!

কেন? কারণ, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের হত্যার বিরুদ্ধে গত বছর সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হয়েছে মামলা৷ সারমেয় এবং পশুপ্রেমী আর তাঁদের বিভিন্ন সংগঠনের তরফে দায়ের হওয়া ওই মামলার পরবর্তী শুনানি হওয়ার কথা আগামী ১৭ নভেম্বর৷ এ দিকে, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের হত্যার হার আরও বেড়ে গিয়েছে বলেই জানিয়েছে সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের বিভিন্ন সংগঠন৷ তার কারণ হিসেবে ওই ব্যবসায়ী এবং কেরলের রাজনৈতিক এক নেতার ‘ষড়যন্ত্রে’র কথা যেমন বলা হচ্ছে৷ তেমনই, উঠে আসছে দুর্নীতির প্রশ্ন-ও৷ অভিযোগ উঠছে, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের নির্বীজন করা এবং প্রতিষেধক দেওয়ার জন্য সেখানকার অ্যানিম্যাল ওয়েলফেয়ার বোর্ডকে ওই রাজ্য সরকারের তরফে অর্থ বরাদ্দ হয়৷ অথচ, এখনও পর্যন্ত ওই টাকায় কেরলে রাস্তার কোনও সারমেয়র জন্য নির্বীজন করা এবং প্রতিষেধক দেওয়ার কাজ হয়নি৷kb-hs-kol-05

আরও পড়ুন: মানুষের কাছে ধর্ষণের শিকার রাস্তার প্রসূতি-সারমেয়

তেমনই, সারমেয়র চামড়া এবং মাংস বিদেশে রপ্তানির জন্যও কেরলে রাস্তার সারমেয়দের হত্যা করা হচ্ছে বলে ওই সব সংগঠনের তরফে অভিযোগ উঠছে৷ শুধুমাত্র তাই নয়৷ সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের বিভিন্ন সংগঠনের তরফে এমন অভিযোগও উঠছে যে, সারমেয়র চামড়া এবং মাংস বিদেশে রপ্তানির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন কেরলের ওই প্রভাবশালী ব্যবসায়ী৷ যে কারণে, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের নির্বিচারে হত্যার জন্য বিভিন্ন উপায়ে ওই ব্যবসায়ীর তরফে উসকানি দেওয়া হচ্ছে বলেও ওই সব সংগঠনের অভিযোগ৷ ওই সব উপায়ের মধ্য যেমন রয়েছে, বেশি সংখ্যক রাস্তার সারমেয়কে হত্যার বিনিময়ে সোনার মুদ্রা উপহারের ঘোষণা৷ তেমনই, সোশ্যাল মিডিয়া এবং ওই ব্যবসায়ীর সংবাদমাধ্যমে রাস্তার সারমেয় সংক্রান্ত এমন তথ্য পেশ করা হচ্ছে, যার প্রভাবে আরও বেশি সংখ্যক রাস্তার সারমেয়কে হত্যার জন্য সাধারণ মানুষকে উৎসাহিত করা হচ্ছে৷kb-hs-kol-02

আরও পড়ুন: রাস্তার সারমেয়-মার্জারের জন্য জলাঞ্জলি তরুণ-তরুণীর ভবিষ্যৎ

আর, এমনই বিভিন্ন কারণে, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের রক্ষার জন্য কলকাতার সারমেয় এবং পশুপ্রেমীরা অনশনেও অংশ নিয়েছেন৷ গত রবিবার, ১৩ নভেম্বর সকাল ন’টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত দক্ষিণ কলকাতার গড়িয়াহাট মোড়ে ওই অনশন কর্মসূচিতে যেমন অংশগ্রহণ করেছেন বহু সারমেয় এবং পশুপ্রেমী৷ তেমনই, ওই কর্মসূচিকে সমর্থনও করেছেন পথচলতি সাধারণ মানুষের অনেকে৷ কেরলে রাস্তার সারমেয়দের হত্যা বন্ধ করতে ২০১৫-র জুলাই মাসে সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের প্রতিবাদ মিছিলের সাক্ষী থেকেছে কলকাতা৷ আর, ৫০০ এবং ১০০০ টাকার নোট বাতিলের জেরে দেশজুড়ে জারি থাকা বিভিন্ন ধরনের সমস্যা-ক্ষোভ-রাজনীতি-পাল্টা রাজনীতির মধ্যে, কেরলের রাস্তার সারমেয়দের রক্ষার জন্যই সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের অনশনের সাক্ষী থাকল এই কলকাতা-ই৷kb-hs-kol-01

আরও পড়ুন: রাস্তার সারমেয় খুনের জেরে চাপে পড়ে তদন্তে পুলিশ

গত রবিবারের ওই অনশনে অংশগ্রহণ করেছিলেন ইন্দিরা গান্ধী ন্যাশনাল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের বোর্ড ট্রেজারার দেবলীনা রায়ের কথায়, ‘‘নোট বাতিল সংক্রান্ত এই সমস্যা না থাকলে আমরা হয়তো আরও বেশি মানুষের কাছে পৌঁছতে পারতাম৷’’ যদিও, একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘রাস্তার কোনও কুকুর অথবা বিড়ালকে অত্যাচার করলে আইন অনুযায়ী পাঁচ বছরের জেল অথবা আর্থিক জরিমানার সংস্থান রয়েছে৷ অথচ, এই আইন যেমন অনেকেই জানেন না৷ তেমনই, বিভিন্ন সময় পুলিশের তরফেও অনীহা প্রকাশ পায়৷’’ তবে, পুলিশ-প্রশাসনের সঙ্গে যুক্তদের অনেকেই যে ওই আইনের বিষয়ে সেভাবে ওয়াকিবহাল নন, সেই বিষয়টিও মনে করিয়ে দিয়েছে সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের বিভিন্ন সংগঠন৷ এ দিকে, কেরলে রাস্তার সারমেয়দের নির্বিচারে হত্যা বন্ধ করতে কলকাতার পাশাপাশি মুম্বই, দিল্লির সারমেয় এবং পশুপ্রেমীদের অনেকেই একজোট হচ্ছেন বলে জানা গিয়েছে৷ দেবলীনা রায়ের কথায়, ‘‘১৩ নভেম্বর দিল্লিতে অনশন হয়েছে৷ তার আগে মুম্বইতেও অনশন হয়েছে৷’’kb-hs-kol-04

আরও পড়ুন: ফোঁটা পেল বোনদের ভুলে না যাওয়া সারমেয়-ভাই

একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আগামী ১৭ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টে মামলার পরবর্তী শুনানি হবে৷ আমরা চাইছি, কেরলে রাস্তার কুকুরদের হত্যা বন্ধ করে ওই ব্যবসায়ী, ওই নেতা আর তাঁদের সঙ্গে যাঁরা যুক্ত রয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক৷ চামড়া আর মাংসের জন্য কুকুরের রপ্তানি বন্ধ হোক৷ এই দাবির পক্ষে ১৭ নভেম্বর আমরা সুপ্রিম কোর্টে কুকুর এবং পশুপ্রেমী সহ সাধারণ মানুষের কাছ থেকে সংগৃহীত স্বাক্ষর পেশ করব৷’’ তবে, এখানেও শেষ নয়৷ দেবলীনা রায় বলেন, ‘‘শুধুমাত্র কলকাতা, মুম্বই, দিল্লির ডগ আর অ্যানিম্যাল লাভাররা নন৷ গোটা দেশের ডগ এবং অ্যানিম্যাল লাভারদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করছি৷ কেরলে রাস্তার কুকুরদের হত্যা বন্ধ করার দাবিতে দেশের ডগ এবং অ্যানিম্যাল লাভাররা যাতে একজোট হতে পারেন, আমরা এখন সেটাই করছি৷’’ আর, এই একজোট হওয়ার জন্য সোশ্যাল মিডিয়াকেও হাতিয়ার করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন৷ এবং, এ ভাবেও কেরলে রাস্তার সারমেয়দের সুরক্ষায় গোটা দেশের হাত শক্ত করছে কলকাতা৷

_____________________________________________________________________

আরও পড়ুন:
(০১) রাস্তার এক হাজার সারমেয়র জন্য বিজয়া দশমীর মাংস-ভাত
(০২) ত্রিপুরার যৌনকর্মীদের জন্য স্পনসর চাইছে বাংলার দুর্বার
(০৩) Auto-Crazy যাত্রীর জন্যই চালক জারি রাখে Autocracy
(০৪) সিলেবাসে চাই ওষুধবিজ্ঞান, পাঠে মগ্ন স্কুল-পড়ুয়ারা
(০৫) কপাল পোড়াদের জীবনে এক বারই আসে প্রেম!
(০৬) বিশ্বাসযোগ্যর নামে ভোটারদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা!
(০৭) কলকাতায় এ বার উবের ক্যাব চালাবেন যৌনকর্মীরা
(০৮) সারদাকাণ্ডে এক সাংবাদিকের আত্মহত্যা এবং মিডিয়া
(০৯) দাভোলকর-পথে কুসংস্কারের ক্রম মুক্তি হবে বাংলায়!
(১০) মিশন: কেরল বয়কটের ভরসা এখন বেঙ্গালুরু
(১১) রাস্তার সারমেয়দের হত্যায় অনশন-বয়কট মিশন

_____________________________________________________________________