স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : শেষ পর্যন্ত স্বাভাবিকের উপরে চলে এল কলকাতার সকালের তাপমাত্রা। সকাল থেকেই চড়ছে পারদ। সঙ্গে রয়েছে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তিও। কিছুদিন ধরে মাঝেই মাঝেই ঝড় বৃষ্টির জেরে তাপমাত্রা স্বাভাবিকের নীচে থাকছিল, আজ বুধবার ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস নেই। দিনভর থাকবে মেঘলা আকাশ। আর্দ্রতাও বাড়বে ফলে গরম। এমনটাই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

বুধবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৩.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি কম। কিন্তু আজ তা এক লাফে দুই ডিগ্রি বেড়ে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়ে গিয়েছে, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। বেলায় তাপমাত্রা বাড়বে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। মঙ্গলবার শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৩.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিক। মঙ্গলবার ২৪ ঘণ্টায় শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩২.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে কম ছিল। তবে তা সোমবারের তুলনায় সামান্য বারে তাপমাত্রা। ওইদিন সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩২.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার তাপমাত্রা আরও একধাপ বেড়ে হয়েছে ৩৩.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা আপাতত স্বাভাবিকের সামান্য নীচে। আজ তা দুপুরে স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে জানাচ্ছে হাওয়া অফিস।

মঙ্গলবার শহরের আর্দ্রতার পরিমাণ ছিল সর্বোচ্চ ৯১ শতাংশ , সর্বনিম্ন ৩৩ শতাংশ। বুধবার তা বেড়ে হয় সর্বোচ্চ ৯৫ সর্বনিম্ন ৩৮ শতাংশ। বৃহস্পতিবার সর্বনিম্ন আর্দ্রতার পরিমাণ আরও একটু বেড়ে হয়েছে ৩৯ শতাংশ। বুধবার দমদম অঞ্চলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২১.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, আগের দিন যা ছিল ২২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৃহস্পতিবার তা এক লাফে বেড়ে হয়েছে ২৫.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সল্টলেকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮ থেকে বেড়ে হয়েছে ২৯.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মঙ্গলবার সকালে তা ছিল ২৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।