স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা করোনা সচেতনতার গান বাজিয়ে কবি প্রণাম সাড়লো কলকাতা পুলিশ। নবান্নের নির্দেশে শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পালন করা হয় এই অনুষ্ঠান। কবি প্রণামকে সামনে রেখে চলে করোনা নিয়ে সচেতনতামূলক প্রচারও।

দেশজুড়ে লকডাউন চলায় রবীন্দ্র জয়ন্তীতে কোনও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও সম্ভব নয়। তাই নবান্নের নির্দেশে এভাবেই রবীন্দ্র জয়ন্তী পালন করল কলকাতা পুলিশ। এদিন শহরে তিনটি ট্যাবলো বেরিয়েছিল। রবীন্দ্র সঙ্গীতের সঙ্গে সঙ্গে ট্যাবলোগুলিতে বাজানো হয় মুখ্যমন্ত্রীর লেখা করোনা সচেতনতার গান।

পুলিশ কর্মীদের মধ্যেও অনেকেই এদিন গান গেয়েছেন। তবে সবটাই হয়েছে প্রয়োজনীয় সামাজিক সুরক্ষা বিধি মেনে। এলাকার গুরুত্বপূ্র্ণ বসতি এলাকা, হাউসিং কমপ্লেক্সের সামনে ট্যাবলো থেকেই মাইকে করোনা নিয়ে কী করা উচিৎ এবং কী করা উচিৎ নয় তা-ও প্রচার করা হয়।

এদিন কবিগুরুর ১৫৯ তম জন্মদিনে বিধানসভাতেও শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। সকাল ১১টায় বিধানসভার লবিতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রতিকৃতি মাল্যদান করেন বিধানসভায় মাননীয় অধ্যক্ষ বিমান বন্দোপাধ্যায়, বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান , বিধায়ক অশোক দেব, বিধানসভার সচিব শ্রী অভিজিৎ সোম ও অন্যান্য আধিকারিক ও কর্মীরা। এমএলএ হোস্টেলেও রবীন্দ্রনাথের জন্মদিন উদযাপন করা হয়েছে।

কলকাতার জোড়াসাঁকোয়, শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী প্রাঙ্গণে এবং বাংলার আরও অনেক স্থানেই পালিত হয় রবি ঠাকুরের জন্মদিন৷ কিন্তু করোনা ভাইরাসের ধাক্কায় টানা লকডাউনের জেরে রবি ঠাকুরের জন্মজয়ন্তী কোনও রকমভাবে পালন করা হচ্ছে। রাজ্য সরকারও অনলাইনে ২৫ বৈশাখ পালন করবে।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প