প্রতীকী ছবি

সুভাষ বৈদ্য, কলকাতা: এবার করোনা আক্রান্ত কলকাতা পুলিশ জয়েন্ট সিপি হেড কোয়াটার শুভঙ্কর সিনহা সরকার৷ রয়েছেন হোম আইসোলেশনে৷ পুলিশ সূত্রে খবর, লালবাজারের ওই শীর্ষ কর্তার তিনদিন আগে জ্বর আসে৷ ফলে তিনি করোনা পরীক্ষা করান৷ বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর করোনা

পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷ বর্তমানে তিনি হোম আইসোলেশন রয়েছেন৷ আপাতত তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল৷ তবে তাঁর সংস্পর্শে যাঁরা এসেছেন,তাঁদের প্রত্যেকেরই করোনা পরীক্ষা করা হবে৷ প্রতিদিনই কলকাতা পুলিশের কেউ না কেউ আক্রান্ত হচ্ছেন৷

জানা গিয়েছে, রাজ্য পুলিশের থেকে কলকাতা পুলিশে আক্রান্তের সংখ্যা বেশি৷ গত বুধবারই কলকাতা পুলিশে নতুন করে ২৫ জন পুলিশকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন৷ যার মধ্যে দক্ষিণ শহরতলি ডিভিশনের একজন এসি রয়েছেন৷ ফলে এই পর্যন্ত কলকাতা পুলিশের মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা ১ হাজার ৬২৮ জন৷

তবে আক্রান্তের পাশাপাশি সুস্থ হয়ে উঠার সংখ্যাটা বাহিনীর মধ্যে মনোবল বাড়াচ্ছে৷ গত বুধবারই ২৫ জন পুলিশকর্মী আক্রান্ত হলেও, ওই দিনই আবার সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৩৫ জন পুলিশকর্মী৷ ফলে এ নিয়ে কলকাতা পুলিশের মোট ১ হাজার ৩২৫ জন সুস্থ হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন৷

এদিকে পুলিশে মধ্যে সংক্রমণ কমাতে একগুচ্ছ নিয়মবিধি তৈরি করল লালবাজার৷ এবার থেকে থানায় আসা বহিরাগতদের জন্য আলাদা ভিজিটর্স রুম তৈরি করা হচ্ছে৷ ভিজিটর্সদের সঙ্গে কর্তব্যরত পুলিশকর্মীকে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে৷

এ ছাড়া, থানা কিংবা ট্র্যাফিক গার্ডে প্রবেশের আগে বহিরাগতদের থার্মাল স্ক্রিনিং ও হাত জীবাণুমুক্ত করার বিষয়টিও বাধ্যতামূলক করা হয়েছে৷ ডিউটির সময় প্রত্যেক পুলিশকর্মীকে বাধ্যতামূলক ভাবে ফেস শিল্ড ও মাস্ক পরতে হবে৷ এছাড়া লালবাজার সেন্ট্রাল লকআপে তৈরি হয়েছে পৃথক ‘আইসোলেশন সেল’৷

করোনা সংক্রমণ রুখতে পৃথক সেলের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে লালবাজার সূত্রে খবর৷ সেন্ট্রাল লকআপে থাকা কোনও অভিযুক্তের শরীরে জ্বর বা অন্য কোনও করোনার উপসর্গ দেখা দিলেই তাকে সঙ্গে সঙ্গে ওই পৃথক ‘আইসোলেশন সেল’ এ সরানোর হবে৷ তারপর তার করোনা টেস্ট করানো হবে৷

রিপোর্ট পজিটিভ এলেই হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করা হবে৷ এমনটাই লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে৷ কোনও অভিযুক্তকে গ্রেফতারের পর তার থেকে যাতে কোনও পুলিশকর্মী করোনা আক্রান্ত না হন, সেজন্য আরও একগুচ্ছ নির্দেশিকা দিয়েছে লালবাজার।

সেগুলি হল- ১) লকআপে ঢোকানোর আগে থার্মাল স্ক্যানিং বাধ্যতামূলক। ২) ধৃত অভিযুক্তদের মাস্ক এবং স্যানিটাইজার দিতে হবে এবং সেটা তারা যাতে ব্যবহার করে তা নিশ্চিত করতে হবে। ৩) একাধিক অভিযুক্ত থাকলে লকআপের ভেতরে সোশ্যাল ডিসটেন্স মেনে রাখতে হবে। ৪) লকআপ নিয়মিত স্যানিটাইজ করতে হবে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও