প্রতীকী ছবি

কলকাতা: রাজ্যে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। জানা যাচ্ছে, আছড়ে পড়ার সময় এই ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ থাকতে চলেছে প্রায় ১২০ থেকে ১৩৫ কিমি। শনিবার রাত বা রবিবার আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বুলবুলের৷ শুক্রবার থেকেই তার দাপটের আঁচ এসে লাগতে শুরু করেছে কলকাতা সহ দুই ২৪ পরগণার গায়ে। মেঘলা আকাশে। ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে বৃষ্টি।

আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, এ রাজ্যের সাগরদ্বীপ ও সুন্দরবন এলাকায় প্রথম আছড়ে পড়তে চলেছে ‘বুলবুল’। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, এরপর এই ঘূর্নিঝড় বাংলাদেশের দিকে মোড় নিতে পারে। তবে আতঙ্কে প্রহর গুনছে কলকাতাও। সঙ্গে এই বিপর্যয় রুখতে তৈরি কলকাতা পুলিশও।

ইতিমধ্যে বিপর্যয় রুখতে প্রস্তুত রয়েছে কমব্যাট ফোর্স। তৈরি রয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরও। জানা গিয়েছে, গঙ্গাবক্ষে প্রশাসনের তরফে ইতিমধ্যেই মাইকিং করা শুরু হয়েছে। ছোট নৌকা নদী পারাপার নিয়ে ব্যাপক কড়াকড়ি জারি হয়েছে। লঞ্চ, ফেরি সার্ভিস ইতিমধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

পরিস্থিতি বেগতিক দিকে গেলে কীভাবে তার মোকাবিলা হবে, তা নিয়ে প্রশাসনের অফিসাররা ইতিমধ্যে বারেবারে মিটিংয়ে বসেছেন। অন্যদিকে লালবাজার থেকেও সতর্কতা জারি করা হয়েছে। কলকাতার প্রত্যেক ডিভিশনে বিপর্যয় মোকাবিলা টিমকে তৈরি রাখা রয়েছে। কোথাও কোনও সমস্যার কথা জানলেই বিপর্যয় মোকাবিলা দফতরের টিম যাতে ছুটে যায় সেজন্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। থানাগুলিকেও সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে, শনিবার সকাল থেকেই শহরের আকাশ মেঘলা। কখনও ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত চলছে। তবে হাওয়া অফিস জানাচ্ছে সন্ধ্যার পর থেকেই পরিস্থতি আরও খারাপ হবে। আলিপুর হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, কলকাতায় ঘন্টায় ৬০-৭০ কিলোমিটার বেগে এই ঝড় কলকাতার উপর দিয়ে বয়ে যাবে। ফলে গাছ ভেঙে পড়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে শহরে। শুধু তাই নয়, বহু পুরানো বাড়িও রয়েছে। তা নিয়েও বেশ চিন্তিত পুরসভা।

অন্যদিকে উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর সহ গাঙ্গেয় উপকূলবর্তী জেলাগুলোতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি সর্তকতা জারি করেছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। বাকি জেলাগুলিতেও মাঝারি বৃষ্টি চলবে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। মৎস্যজীবীদের জন্যেও সাইক্লোন বুলবুলের কারণে সর্তকতা জারি করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার থেকেই গভীর সমুদ্র থেকে সমস্ত মৎস্যজীবীদের ফেরত আসতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। হাওয়া অফিস মনে করছে আগামী ১১ তারিখ পর্যন্ত চলবে এই সাইক্লোন বুলবুলের দাপট ৷ আর সেই কারণে এই চার দিন মৎস্যজীবীদের সমুদ্র যেতে নিষেধ করেছে আবহাওয়া দফতর।