কলকাতা: করোনা ফের প্রাণ কাড়ল এক পুলিশকর্মীর৷ এবার মৃত্যু হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার নোদাখালি থানার এক কনস্টেবলের৷ আক্রান্ত ওই থানার আরও ১০ পুলিশকর্মী৷ এমনটাই সূত্রের খবর৷ পুলিশ সূত্রে খবর, নোদাখালি থানার ৩ জন আধিকারিক, ৪ জন কনস্টেবল ও ৩ জন সিভিক ভলেন্টিয়ার করোনা আক্রান্ত৷ এরপরই গোটা থানা চত্বর জীবাণুমুক্ত করা হয়৷

বৃহস্পতিবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় একদিনে আক্রান্ত ২৬১ জন৷ মোট আক্রান্ত ৬,২৫৪ জন৷ ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১২৩ জন৷ মোট সুস্থ হয়েছেন ৪,৬০৫ জন৷ একদিনে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ মোট মৃতের সংখ্যা ১০৮ জন৷ অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ১,৫৪১ জন৷

দক্ষিণ ২৪ পরগনার পাশাপাশি কলকাতা পুলিশে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে৷ প্রসঙ্গত একদিনেই কলকাতা পুলিশের ৪৯ জন করোনা আক্রান্ত৷ মোট সংখ্যাটা প্রায় ১৪০০৷ তবে বেশিরভাগ পুলিশ আধিকারিক ও পুলিশকর্মী সুস্থ হয়ে উঠেছেন৷

সূত্রের খবর, গত মঙ্গলবার একদিনেই কলকাতা পুলিশের ৪৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন৷ এদের মধ্যে পুলিশ আধিকারিক ও পুলিশকর্মীরা রয়েছেন৷ গত সোমবার এই সংখ্যাটা ছিল ৩১ জনে৷ তবে এই পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১৩৮৮ জন৷ ফলে উদ্বেগ বাড়ছে পুলিশ মহলে৷

লালবাজার জানিয়েছে, একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৪১ জন৷ আর এই পর্যন্ত বেশিরভাগ পুলিশ আধিকারিক ও পুলিশকর্মী সুস্থ হয়ে উঠেছেন৷ এর আগে একদিনে কলকাতা পুলিশের ৪২ জন করোনা আক্রান্ত হন৷ তাদের সবার রিপোর্ট পজিটিভ ছিল৷ তখন আক্রান্তের সংখ্যাটা ছিল এক হাজারের একটু বেশি৷

এছাড়া এখনও পর্যন্ত কলকাতা পুলিশের ৮ জন পুলিশকর্মী মারা গিয়েছেন৷ কিছুদিন আগে করোনায় মৃত্যু হয় চারু মার্কেট থানার কনস্টেবল দেবেন্দ্রনাথ তির্কির৷

কলকাতা পুলিশ জানিয়েছিল,‘কনস্টেবল দেবেন্দ্রনাথ তির্কি।চারু মার্কেট থানায় কর্মরত ছিলেন। একেবারে সামনের সারিতে থেকে লড়ছিলেন করোনা-যুদ্ধে। কোভিডে আক্রান্ত হয়ে সম্প্রতি ভর্তি হন হাসপাতালে৷ সেখানেই তার মৃত্যু হয়৷

এই প্রয়াত সহযোদ্ধার পরিবারের হাতে রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য বিমা অনুযায়ী দশ লক্ষ টাকা তুলে দেওয়া হবে শীঘ্রই।প্রয়াত সহকর্মীর শোকসন্তপ্ত পরিবারের পাশে আমরা আছি, এবং থাকব সর্বতোভাবে।’

করোনার হাত থেকে রেহাই পায়নি বিধাননগর কমিশনারেটের পুলিশকর্মীরাও৷ কিছুদিন আগে এয়ারপোর্ট থানায় দুই শীর্ষ আধিকারিক করোনা আক্রান্ত হন। ওই ২ আধিকারিকের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল৷

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।