ফাইল ছবি

কলকাতা: বিদ্যুৎহীন কলকাতা মেডিকেল কলেজের গ্রিন বিল্ডিং সহ একাধিক বিল্ডিং৷ চরম ভোগান্তি রোগীদের৷ জেনারেটর চালিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা হাসপাতালের৷ কী কারণে এই বিদ্যুৎ বিভ্রাট খতিয়ে দেখছে পিডব্লুডি। জানা গিয়েছে, সোমবার বিকেল ৩.৩৫ নাগাদ আচমকাই বিদ্যুৎবিহীন হয়ে পড়ে কলকাতা মেডিকেল কলেজের একাধিক বিল্ডিং। এর মধ্যে রয়েছে গ্রিন বিল্ডিংও৷ যেখানে করোনা সন্দেহে ২০০ রোগী ভর্তি রয়েছেন৷

এছাড়া ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ) , ব্লাড ব্যাংক , ইডেন বিল্ডিং , নার্সিং কোয়ার্টার-সহ বেশ কয়েকটি ভবন দীর্ঘ সময় অন্ধকারে ছিল৷ আপৎকালীন ব্যবস্থার জন্য হাসপাতালের ইডেন বিল্ডিং-এর পিছনে সবচেয়ে বড় জেনারেটর রাখা রয়েছে৷ কিন্তু আপৎকালীন সময় সেটি চালু করা যায়নি বলে অভিযোগ৷

তবে শেষ পর্যন্ত প্রায় দেড় ঘণ্টা পর বিদ্যুৎ পরিষেবা স্বাভাবিক হয়৷ গতকাল রবিবার কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ঘটে গিয়েছে আরেক কান্ড৷ করোনা আক্রান্ত এক রোগী হঠাৎ লেপ-কম্বল নিয়ে ওয়ার্ডের সর্বত্র ঘুরে বেড়াতে শুরু করেন৷ এক সময় হাসপাতালের ৯ তলার ছাদের কার্নিশে বসে পা দোলাতে থাকেন৷ অবশেষে অনেক চেষ্টা করে তাকে তার বেডে ফিরিয়ে আনা হয়৷

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছিল, করোনা আক্রান্ত ওই রোগীর বয়স ৩৪। সম্প্রতি তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। আর তারপর থেকেই তিনি কার্যত দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। অথচ মেডিকেল কলেজের সুপার স্পেশালিটি ব্লকেই করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা চলছে। হাসপাতাল সুপার ইন্দ্রনীল বিশ্বাস সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, “করোনা পজেটিভ হওয়ায় এই রোগীকে হাসপাতালে আনা হয়েছে।

চিকিৎসার জন্য সুপার স্পেশালিটি ব্লকে তাকে রাখা হয়েছে। কিন্তু মাঝেমধ্যে লেপ-কম্বল নিয়ে ছোটাছুটি করছে ওয়ার্ডের মধ্যে। কখনও লুকিয়ে পড়ছে। ফলে একটু সমস্যা হচ্ছিল। সম্ভবত মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন এই রোগী। চিকিৎসকরা চেষ্টা করছেন সব রকম ভাবে তাকে চিকিৎসা করে সুস্থ করে তোলার।”

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প