কলকাতা: শত ব্যস্ততার মাঝেও প্রতি বছর নিয়ম করে বেশ কয়েকটা ম্যাচে ইডেনে আসেন দলকে উৎসাহিত করতে৷ কেকেআরের কয়েকটা অ্যাওয়ে ম্যাচেও গ্যালারিতে দেখা যায় টিম মালিক শাহরুখ খানকে৷ এবার টুর্নামেন্টে কলকাতার প্রথম ম্যাচেই ইডেনে উপস্থিত কিং খান এবং শুরুতেই একটা উত্তেজক লড়াইয়ের সাক্ষী থাকেলন বাদশা৷ ভাগ্য ভালো যে, নীতিশ রানা ও রবিন উথাপ্পার গড়া ভিতে রাসেল ও শুভমন গিল জয়ের ইমারত গড়ে তোলায় এ যাত্রায় মান বাঁচল শাহরুখের৷ না হলে পান থেকে চুন খসলেই ইডেন থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নিয়ে যেত সানরাইজার্স হায়দরাবাদ৷

আরও পড়ুন: আইপিএলে ফিরেই বিধ্বংসী ওয়ার্নার

টসে জিতে কলকাতা প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানায় সানরাইজার্সকে৷ ডেভিড ওয়ার্নারের লড়াকু হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে হায়দরাবাদ নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৮১ রান তোলে৷ ওয়ার্নার ৯টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ৫৩ বলে ৮৫ রান করে আউট হন৷ তাঁকে যথাযথ সঙ্গত করেন জনি বেয়ারস্টো (৩৫ বলে ৩৯), বিজয় শংকররা (২৪ বলে ৪০)৷

আরও পড়ুন: কেকেআরের প্রথম ম্যাচেই ইডেনে বিদ্যুৎ বিভ্রাট

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শেষ ওভারের থ্রিলারে ম্যাচ জিতে নেয় কেকেআর৷ ১৯.৪ ওভারে ৪ উইকেটের বিনিময়ে ১৮৩ রান তুলে ম্যাচ পকেটে পোরে নাইটরা৷ ২ বল বাকি থাকতে নাইটদের ৬ উইকেটে জয়ে মুখ্য ভূমিকা নেন ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল৷ বল হাতে ২টি উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতে ১৯ বলে অপরাজিত ৪৯ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা হন তিনি৷ গোটা ইনিংসে রাসেল ৪টি চার ও ৪টি ছক্কা মারেন৷

আরও পড়ুন: ওয়াংখেড়েতে ঋষভ ঝড়, মুম্বইয়ের সামনে রেকর্ড রানের লক্ষ্যমাত্রা

নাইটদের হয়ে নীতিশ রানা সর্বোচ্চ ৬৮ রান করেন৷ ৪৭ বলের ইনিংসে ৮টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন তিনি৷ উথাপ্পা ২৭ বলে ৩৫ রান করে ক্রিজ ছাড়েন৷ জয়ের জন্য দু’ওভারে ৩৪ রান দরকার ছিল কলকাতার৷ রাসেলের দাপটে ১৯ তম ওভারে ২১ রান তোলে কেকেআর৷ শেষ ওভারে ১৩ রান প্রয়োজন থাকলেও লক্ষ্যে পৌঁছতে বিশেষ অসুবিধা হয়নি নাইটদের৷ সাকিব একটি ওয়াইড বল করেন৷ রাসেল একটি সিঙ্গল নেন৷ দু’টি ছক্কায় কেকেআরের জয় নিশ্চিত করেন শুভমন গিল৷ তিনি ১০ বলে ১৮ রান করে অপরাজিত থাকেন৷

আরও পড়ুন: ব্যর্থ যুবরাজের লড়াই, ওয়াংখেড়েতে ছোটবাবুকে টেক্কা দাদার

দল প্রথম ম্যাচে জয় তুলে নেওয়ায় যারপরনাই তৃপ্ত দেখায় নাইট মালিক শাহরুখ খানকে৷ ম্যাচের শেষে ইডেনে স্বভাবসুলভ ভিকট্রি ল্যাপও দিতে দেখা যায় বলিউডের বাদশাকে৷ যদিও ম্যাচ হারলেও ইডেনের দর্শকদের কখও হতাশ করেননি কিং খান৷ ইডেনে এলে অবধারিতভাবে মাঠে ঘুরে সমর্থকদের অভিবাদন স্বীকার করেন তিনি৷