কলকাতা:  উৎসব জমজমাট। শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে কলকাতা আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল। নতুন করে মেতে উঠেছে কলকাতাবাসী। এবার উৎসবের ২৫ বছর। নন্দন চত্বরে সারাদিন সিনেমাপ্রেমীদের ভিড়। উৎসব চলবে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত।

গতবারে চলচ্চিত্র উৎসবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি ঘিরে শুরু হয়েছিল বিতর্ক। পরিচালক অনীক দত্তের করা মন্তব্য তাতে আগুনে ঘি ঢেলে দেয়। প্রশ্নের মুখে সম্মুখীন হয় ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল কতৃপক্ষ। আর তাই এবারে একেবারে নতুন ভাবে সিনে প্রেমীদের জন্য সামনে এসেছে এই উৎসব। এবারের ফোকাল থিম জার্মানি। প্রতিদিন প্রদর্শিত হচ্ছে নানা দেশের ছবি।

সিনে প্রেমীদের কাছে নন্দন চত্বর এবং ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল বরাবর আকর্ষণের জায়গা। চলচ্চিত্র উৎসবের চেয়ার পার্সনের দায়িত্বে আছেন পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। উৎসব শুরুর পর ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের ভ্রুকুটি উপেক্ষা করে সিনেমা দেখেছে অনেকে। খুশি রাজ চক্রবর্তী নিজেও। তাঁর বিশ্বাস ২৫ বছরের উরসব সফল হবে।

এবার চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনে রাখি গুলজারের বিশেষ অতিথি হয়ে আসাটাও সিনেপ্রেমীদের কাছে চমকের। নন্দনে ছবিও দেখেন তিনি। বাংলায় এসে যথেষ্ট খুশি রাখি। নন্দন চত্বরে সেলফি জোন এবং ফেডারেশন অফ ফিল্ম সোসাইটির করা স্টল অনেকের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে। বহু পরিচালকের সিনেমার চিত্রনাট্য থেকে শুরু করে ঋত্বিক ঘটক, মৃণাল সেন সংক্রান্ত বিভিন্ন বই মন কেড়েছে অনেকের।

সিনেমা দেখার পাশাপাশি তাই স্টলগুলিতে ঢুঁ মারছেন অনেকেই। কেবল সিনেপ্রেমী ছাড়াও ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল উপলক্ষে কলেজ পড়ুয়ারাও ভিড় জমিয়েছেন। ক্রমেই স্বাদ পাল্টাচ্ছে বিশ্ব সিনেমা। শুধু সিনে প্রেমীদের কাছে নয় উঠতি পরিচালক ও অভিনেতাদের কাছেও এই উৎসব অদ্বিতীয়। সারা বছর অপেক্ষা করে থাকেন মাত্র এই কয়েকটা দিনের জন্য। শুধুমাত্র সিনেমাই নয়, শর্ট ফিল্ম, ডকুমেন্টারি ফিল্মের সমন্বয়ে চলচ্চিত্র উৎসব হয়ে উঠে অন্যন্য। এছাড়া রয়েছে প্রতিযোগিতামূলক বিভাগ। এবারে ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত পরিচালিত ‘উড়োজাহাজ মন কেড়েছে সিনেপ্রেমীদের। সব মিলিয়ে কলকাতা ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল আছে নিজের গরিমাতেই।