করোনা

কলকাতা: কলকাতায় একদিনে আক্রান্তের থেকে বেশি সুস্থ হয়ে উঠেছেন৷ কমেছে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাও৷ সোমবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী,কলকাতাতে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ১৩ জনের৷ রবিবার ছিল ৮ জন৷ শনিবার ছিল ১২ জনে৷

তার আগে শুক্রবার যদিও এই সংখ্যাটা পৌঁছে গিয়েছিল ২২ জনে৷ তবে শুধু কলকাতাতেই এই পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১,১৮৭ জনের৷ পাশাপাশি একদিনে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ফের কমেছে৷ গত ২৪ ঘন্টায় ১৯৯ জন কমে মোট সংখ্যাটা ৬ হাজারের নিচে নেমে এল৷ তথ্য অনুযায়ী,৫,৬৯১ জন৷ রবিবার ছিল ৫,৮৯০ জন৷

শনিবার ছিল ৫,৯১০ জন৷ শুক্রবার এই সংখ্যাটা ছিল ৬,১১৪ জন৷ অর্থাৎ কলকাতায় প্রতিদিনই কমছে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা৷ এছাড়া শহরে একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৬৫ জন৷ রবিবার ছিল ৫৬৩ জন৷ শনিবার ছিল ৫১৬ জন৷ শুক্রবার ছিল ৪৬২ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩৬ হাজার ৭২২ জন৷

কলকাতায় একদিনেই সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরলেন ৬৫১ জন৷ একদিনে আক্রান্তের থেকে বেশি৷ তথ্য অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় কলকাতায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৬৫ জন৷ তবে এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২৯ হাজার ৮৪৪ জন৷

সোমবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী,বাংলায় একদিনে আক্রান্ত ২,৯৬৭ জন৷ রবিবার ছিল ৩,২৭৪ জন৷ শনিবার ছিল,৩,২৩২ জন৷ তুলনামূলক একদিনে কমল আক্রান্তের সংখ্যা৷ মোট আক্রান্ত ১ লক্ষ ৪১ হাজার ৮৩৭ জন৷ গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫৭ জন৷

রবিবারও মৃতের সংখ্যা ৫৭ জনেই ছিল৷ শনিবার ছিল ৪৮ জনে৷ তবে শুক্রবার ছিল ৫৫ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ২,৮৫১ জন৷ একদিনে কমেছে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাও৷ গত ২৪ ঘন্টায় ৩৭৫ জন কমে এই মুহূর্তে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ২৭ হাজার ৬৯৪ জন৷ রবিবার এই সংখ্যাটা ছিল ২৮ হাজার ৬৯ জনে৷ গত ২৪ ঘন্টায় ৩ হাজার ২৮৫ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন৷

রবিবার ছিল ৩ হাজার ৪৮ জন৷ শনিবার ছিল ৩ হাজার ৮৮ জন৷ শুক্রবার ছিল ৩ হাজার ৮২ জন৷ তবে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লক্ষ ১১ হাজার ২৯২ জন৷ সুস্থ হয়ে ওঠার হার বেড়ে হল ৭৮.৪৬ শতাংশ৷ রবিবার ছিল ৭৭.৭৮ শতাংশ৷ অর্থাৎ বাংলায় প্রতিদিনই বাড়ছে সুস্থ হয়ে ওঠার হার৷

যে ৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কলকাতার ১৩ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ১২ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৬ জন৷ হাওড়া ৯ জন৷ হুগলি ৪ জন৷ পশ্চিম বর্ধমান ১ জন৷ পূর্ব বর্ধমান ১ জন৷ পূর্ব মেদিনীপুর ১ জন৷ পশ্চিম মেদিনীপুর ২ জন৷ মুর্শিদাবাদ ১ জন৷ মালদা ১ জন৷ দক্ষিণ দিনাজপুর ২ জন৷ জলপাইগুড়ি ১ জন৷ দার্জিলিং ১ জন৷ কোচবিহার ১ জন৷ আলিপুর দুয়ার ১ জন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I