কলকাতা: বাংলায় মোট মৃত্যু হয়েছে ২,২৫৯ জন৷ এর মধ্যে শুধু কলকাতাতেই মৃত্যু হয়েছে এক হাজারের বেশি৷ মোট আক্রান্ত ৩০ হাজারের বেশি৷ তবে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২২ হাজারের বেশি৷

বৃহস্পতিবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শুধু কলকাতাতেই গত ২৪ ঘন্টায় ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ বুধবার এই সংখ্যাটা ছিল ১৯ জন৷ রবিবার ছিল ২১ জন৷ সেই তুলনায় একদিনে মৃতের সংখ্যা কমেছে৷ কিন্তু রাজ্যে মোট মৃতের সংখ্যার প্রায় ৫০ শতাংশই কলকাতার৷

এই পর্যন্ত শুখু কলকাতাতেই মৃত্যু হয়েছে ১,০১৫ জনের৷ এছাড়া কলকাতাতে গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৬৬ জন৷ বুধবার ছিল৬১৯ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ৭১১ জন৷ সোমবার এই সংখ্যাটা ছিল ৬১৮ জনে৷ তবে এই পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে হয়েছে ৩০ হাজার ৪৭০ জনে৷

বৃহস্পতিবারের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে ৩৭ জন কমে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা হল ৬,৫৯৮ জনে৷ বুধবার ছিল ৬,৬৩৫ জন৷ মঙ্গলবারের তথ্য অনুযায়ী,একদিনে ১৮৪ জন কমে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ছিল ৬,৬১৫ জনে৷ সোমবার ছিল ৬,৭৯৯ জন৷ আর রবিবার ছিল ৭ হাজার ৪১ জন৷

একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৬৮৭ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২২ হাজার ৮৫৭ জন৷ বৃহস্পতিবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী,বাংলায় একদিনে ফের বাড়ল মৃতের সংখ্যা৷ গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫৬ জনের৷

বুধবার সংখ্যাটা ছিল ৫৪ জনে৷ তবে এই পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ২,২৫৯ জনের৷ একদিনে আক্রান্ত প্রায় তিন হাজার৷ পরিসংখ্যান অনুযায়ী,২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২,৯৯৭ জন৷ বুধবারের থেকে বেশি৷ সেদিন ছিল ২,৯৩৬ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ২,৯৩১ জন৷

তবে এই পর্যন্ত রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যাটা ১ লক্ষ ৭ হাজার ৩২৩ জন৷ তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে ২৬ হাজার ৪৪৭ জন৷ একদিনে বেড়েছে ৪৪৪ জন৷ ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২৪৯৭ জন৷ বুধবার ছিল ২,৭২৫ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ৩,০৬৭ জন৷

তবে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭৮ হাজার ৬১৭ জন৷ সুস্থ হয়ে উঠার হার বেড়ে হল ৭৩.২৫ শতাংশ৷ গত বুধবার ছিল ৭২.৯৬ জন৷ মঙ্গলবার ছিল ৭২.৩৯ শতাংশ৷ সোমবার ছিল ৭১.৪৩ শতাংশ৷ রবিবার ছিল ৭০.২৪ শতাংশ৷ অর্থাৎ বাংলায় প্রতিদিনই বাড়ছে সুস্থ হয়ে উঠার হার৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও