ফাইল চিত্র

কলকাতা: করোনা আক্রান্ত রোগী৷ হাসপাতালে নিয়ে এসেও শেষ রক্ষা হল না৷ হাসপাতালের সামনে অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্য়ে পড়ে থেকেই মৃত্যু হল রোগীর৷ অভিযোগের তির কলকাতার একটি বেসরকারি পাসপাতালের বিরুদ্ধে৷ আনন্দপুর থানায় অভিযোগ দায়ের রোগীর পরিবারের৷

জানা গিয়েছে, অসুস্থ ৬০ বছরের লায়লা বিবিকে তমলুক থেকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়৷ প্রথমে পার্ক সার্কাসের একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে তার চিকিৎসা চলছিল৷ পরে তার করোনা টেস্ট করা হলে,সেই রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷ তখন পার্ক সার্কাসের ওই হাসপাতাল থেকে রোগীকে অন্যত্র নিয়ে নিতে বলা হয়৷

তখন করোনা আক্রান্ত প্রৌঢ়ার পরিবার বাইপাসের কাছে একটি বেসরকারি হাসপাতালে যোগাযোগ করেন৷ এবং ৮০ হাজার টাকা দিয়ে বেড বুক করেন বলে দাবি রোগীর পরিবারের৷ তারপর সোমবার রাতে ওই হাসপাতালে রোগীকে নিয়ে আসা হলে, বলা হয় আগে ৩ লাখ টাকা জমা দিন তারপর রোগীকে ভর্তি নেওয়া হবে৷ এমনই অভিযোগ করেছেন রোগীর পরিবার৷

অভিযোগ, হাসপাতালকে বার বার অনুরোধ করা স্বত্বেও রোগীকে অ্যাম্বুল্যান্স থেকে নামানো হয়নি৷ পরে আরও ২ লাখ টাকা জমা দেওয়া হয় বলে পরিবারের দাবি৷ তারপরও চিকিৎসা শুরু করা হয়নি বলে পরিবারের অভিযোগ৷ শেষে দীর্ঘক্ষন অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্যেই পড়ে থেকে প্রাণ হারালেন ৬০ বছরের লায়লা বিবি৷

অন্যদিকে, অভিযোগ উঠা বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীর পরিবারের সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে৷ তাদের দাবি, তিন লক্ষ টাকা না দিলে ভর্তি হবে না, একথা ঠিক নয়৷ রোগী আসার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের চিকিৎসক গিয়ে দেখেন অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্যেই তার মৃত্যু হয়েছে৷ তাই ভর্তি নেওয়া হয়নি৷

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, তিন দিন আগেই লায়লা বিবির স্বামীর করোনায় মৃত্যু হয়েছে৷ স্বামীর মৃত্যুর পর পরই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ এরপরই তমলুক থেকে তাকে কলকাতায় নিয়ে আসা হয়৷ শেষ পর্যন্ত লায়লা বিবিরও মৃত্যু হল৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও