কলকাতা: কলকাতায় কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ৩৯ থেকে কমে হল ২৩৷ পাশাপাশি একদিনের হিসেবে কমেছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা৷ কনটেনমেন্ট জোনের নতুন তালিকায় উত্তর কলকাতার বেশ কয়েকটি এলাকা রয়েছে৷ এখানকার তিন নম্বর বোরোতে নতুন করে ৭টি কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হয়েছে৷

এছাড়া উত্তর কলকাতার ৩১, ৩৩ ,৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের কিছু এলাকায় এখনও করোনার দাপট রয়েছে৷ তবে দক্ষিণ কলকাতায় কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা কমেছে৷ ১০১ নম্বর ওয়ার্ডে ১৩ টি কনটেনমেন্ট জোন ছিল৷ নতুন তালিকায় সেই সংখ্যা কমে পাঁচে এসে দাঁড়িয়েছে৷ কিন্তু ৬৯ নম্বর ওয়ার্ডে বালিগঞ্জের ২৯ হাজরা রোড ও ৪ নম্বর রেনি পার্ক এলাকায় দু’টি বহুতলে একাধিক মানুষ কোরোনা আক্রান্ত হয়েছেন৷

তাই ওই দু’টি আবাসনকে কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হয়েছে৷ এছাড়াও ৭৪ নম্বর ওয়ার্ডের আলিপুর অঞ্চলে একটি বহুতলে অনেকে করোনায় আক্রান্ত৷ সেটিকেও কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। তবে স্বস্তির খবর, একদিনের হিসেবে কলকাতায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কমেছে৷

পাশাপাশি বেড়েছে সুস্থ হয়ে উঠার হার৷ সোমবারের রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী,শুধু কলকাতা শহরে এই পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২০ হাজার ৭১৩ জন৷ ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮৪৬ জন৷ রবিবার ছিল ৫৩৩ জন৷

সেই হিসেবে একদিনে অনেকটাই বেড়েছে সুস্থ হয়ে উঠার হার৷ অন্যদিকে শহরে কমেছে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাও৷ একদিনে ২৪২ জনে কমে এই মূহুর্তে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা ৬,৭৯৯ জন৷ যা রবিবার ছিল ৭ হাজার ৪১ জনে৷ গত ২৪ ঘন্টায় শুধু কলকাতায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬১৮ জন৷

শনিবারের তথ্য অনুযায়ী এই সংখ্যাটা ছিল ৬১৫ জন৷ একসময় একদিনে প্রায় ৭০০ তে পৌঁছে গিয়েছিল৷ সেই তুলনায় কম৷ তবে এই পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ৪৭৪ জনে৷ এদিকে শুধু কলকাতাতেই একদিনে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের৷ রবিবার এই সংখ্যাটা ছিল ২১ জনে৷ একদিনে অনেকটাই কমেছে মৃতের সংখ্যা৷ তবে এই পর্যন্ত কলকাতায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯৬২ জন৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও