হাওড়া: মাউন্ট মাকালু অভিযানে গিয়ে নিখোঁজ হলেন বাঙালি পর্বতারোহী। সামিট সেরে ফেরার পথে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছেন হাওড়ার বালির বেলানগরের বাসিন্দা পর্বতারোহী দীপঙ্কর ঘোষ। উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন তাঁর পরিবার। দীপঙ্কর রওনা হয়েছিলেন বিশ্বের পঞ্চম উচ্চতম শৃঙ্গ মাউন্ট মাকালুতে। বৃহস্পতিবার সামিট ফেরার পথে নিখোঁজ হন তিনি। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এখনও খোঁজ পাওয়া যায়নি তাঁর।

হাওড়ার বালি এলাকার বেলানগরের বাসিন্দা দীপঙ্কর। তিনি তিন ভাই-বোনের মধ্যে কনিষ্ঠ। ছোটবেলায় মানুষ কাকা-কাকিমার কাছে। বিদ্যাসাগর কলেজ থেকে তিনি স্নাতক হওয়ার পর ব্যবসায় যুক্ত হন। তারপরই শুরু করেন পর্বতারোহন৷ এজন্য তিনি বেসিক মাউন্টেনিয়ারিং কোর্স করেন। অ্যাডভানস মাউন্টেনিয়ারিং কোর্স, সার্চ অ্যান্ড রেসকিউ কোর্স করেছিলেন।

১৯৯৫ সাল থেকে পর্বতাভিযান শুরু করেন দীপঙ্কর। এরপর থেকে ২০১১ সালে তিনি জয় করেন বিশ্বের উচ্চতম পর্বত মাউন্ট এভারেস্ট। চতুর্থ উচ্চতম শৃঙ্গ লোৎসে (২০১২), তৃতীয় উচ্চতম কাঞ্চনজঙ্ঘা (২০১৪) জয় করেন। এছাড়াও তিনি জয় করেন মানাসলু চোইয়ু, ধৌলাগিরি সহ একাধিক শৃঙ্গ। তিনি রাজ্যের তথা ভারতের প্রথম পর্বতারহী হিসেবে ধৌলাগিরি শৃঙ্গ জয় করেন।

পর্বতে উদ্ধারের কাজ করতে গিয়ে তাঁর দুই হাত ও পায়ের আঙুল তুষার ক্ষতের জন্য বাদ দিতে হয়। ওই অবস্থায় ২০১৮ সালে নেপালের চোইয়ু অভিযানে সফল হন। এই বছর তিনি বেরিয়েছিলেন মাকালু সামিটের উদ্দেশ্যে। কিন্তু প্রায় সাড়ে ৭ হাজার মিটার উচ্চতায় হঠাৎই দলের থেকে পিছিয়ে পড়েন তিনি। যে কারণে ফোর্থ সামিট ক্যাম্পে ফিরতে পারেননি তিনি।

দীর্ঘক্ষণ ক্যাম্পে না ফেরায় দীপঙ্করের ব্যক্তিগত শেরপা সোনু তাঁকে খুঁজতে বের হন। কিন্তু তাঁকে খুঁজে না পেয়ে ফিরে আসে ফিরে আসেন সোনু। সেভেন সামিটের একটি টিম দীপঙ্করকে উদ্ধারের কাজ শুরু করেছে। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এখনও তাঁর খোঁজ পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত কয়েক বছর আগে দীপঙ্কর ঘোষ মাকালু অভিযানে বেরিয়েছিলেন। কিন্তু রোপ কম পড়ায় সামিটের মাত্র ১৮৫ মিটার দূর থেকে ফিরে আসতে হয়। এইবছর আবারও তিনি বেরিয়েছিলেন মাকালুর উদ্দেশ্যে। অন্যদিকে, কাঞ্চনজঙ্ঘা শৃঙ্গ অভিযানে গিয়ে মৃত কুন্তল কাঁড়ার এবং বিপ্লব বৈদ্যের দেহ উদ্ধারের জন্য পিক প্রমোশনের উমেশ শেরপার নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থলের জন্য রওনা হয়েছে। এর পাশাপাশি রুদ্রপ্রসাদ হালদার এবং রমেশ রায়কে ক্যাম্প দুই থেকে হেলিকপ্টারে নিয়ে আসা হয়েছে কাঠমান্ডুর হাসপাতালে। তাদের শরীরে তুষার ক্ষত হয়েছে। সেখানেই তাঁদের চিকিৎসা চলছে।