স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আর অনুনয়-বিনয় নয়। পয়লা জুলাই থেকে রাস্তায় বেসরকারি বাস না নামলে কঠোর পদক্ষেপ করবে সরকার। বাস মালিকদের উদ্দেশ্যে মঙ্গলবার নবান্ন থেকে কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি জানালেন, প্রয়োজনে বেসরকারি বাস সরকার চালাবে। ভাড়া বৃদ্ধির দাবিতে অনড় বেসরকারি বাস মালিকরা রাস্তায় বাস নামাচ্ছেন না৷ রাজ্য সরকার ৬০০০ বেসরকারি বাসকে আগামী তিন মাস ১৫ হাজার টাকা করে ভর্তুকি দিতে চাইলেও বাস মালিকরা সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন৷

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, সরকারের সঙ্গে বৈঠকে বাস মালিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা ক্ষতিপূরণ নিয়ে বাস চালানোর শর্তে রাজি হয়েছিলেন৷ কিন্তু পরে তাঁরা সিদ্ধান্ত বদল করে অন্য কথা বলছেন৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, বাধ্য হয়েই সরকারকে কড়া পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে৷ তিনি জানিয়েছেন, বুধবার থেকে যদি রাস্তায় পর্যাপ্ত সংখ্যক বেসরকারি বাস না নামে, তাহলে বিপর্যয় মোকাবিলা আইনানুগ ক্ষমতা প্রয়োগ করেই বাস মালিকদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করবে সরকার৷

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বেসরকারি বাস নিয়ে নিজেরাই চালাবে সরকার৷ সেক্ষেত্রে নিয়ম মেনে বাস মালিকদের ভাড়া মিটিয়ে দেওয়া হবে৷ বেসরকারি বাসের চালক, কন্ডাক্টররা যদি সরকারের হয়ে কাজ করতে রাজি হয়, তাহলে সরকারই তাঁদের বেতন দেবে৷ তা না হলে বিকল্প ব্যবস্থা করা হবে৷

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “মানুষের দুর্ভোগ কমাতে ২৭ কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে চেয়েছিলাম৷ সাধারণ মানুষের পকেট থেকে টাকা না কেটে আমরাই খরচ দেব ভেবেছিলাম৷ আমি নিজে বাসমালিকদের সঙ্গে কথা বলেছিলাম৷ তাঁরা রাজিও হয়েছিলেন। কিন্তু পরে দেখলাম অন্যরকম বিবৃতি দিচ্ছে।”

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “সরকারের নীতিই হল কখনও সফট কখনও টাফ। তাই বুধবার, ১ জুলাই থেকে রাস্তায় বাস না নামলে আইন অনুযায়ী সরকারকে ব্যবস্থা নিতে হবে৷” বাস মালিকদের উদ্দেশে তিনি ফের বলেন, “এটা দরাদরি করার সময় নয়৷ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সময়৷”

মুখ্যমন্ত্রী এও বলেন, “ডিজেলের দাম বাড়লেই যদি বাস ভাড়া বাড়াতে হয় তাহলে জ্বালানির দাম কমলে বাস ভাড়া কমানোর ব্যবস্থা করা যায় কি না, তাও ভেবে দেখতে হবে সরকারকে৷” সোমবার থেকে রাস্তায় কম বাস চলছে। জয়েন্ট কাউন্সিল অফ বাস সিন্ডিকেট সাফ জানিয়েছে, ভাড়া না বাড়লে,তারা বাস চালাবে না। অন্যদিকে বেঙ্গল বাস সিন্ডিকেট সূত্রে খবর রাস্তায় তাদের বাসের সংখ্যাও কমল।

লকডাউন অধ্যায়ে বাস চলত এই সংগঠনের ৬০০ থেকে ৭০০ খানা। এখন সেই সংখ্যা কমে দাঁড়িয়েছে মাত্র ১০০ থেকে ১৫০তে। এই সংগঠন মোট ১৮ রুটে বাস চালায়। তার মধ্যে ৪৫ ও ৩৭ নম্বর রুটের বাসের তেল খরচ না ওঠায় সেগুলো চালানো বন্ধ হয়ে গেছে। বাকি রুটের বাস সংখ্যা কমে গিয়েছে।

সংগঠনের সভাপতি তথা তৃণমূল বিধায়ক স্বর্ণকমল সাহা আগেই জানিয়েছেন, “ভাড়া বাড়ানো ছাড়া অন্য কোনও উপায় নেই। তবে সরকার এখন মানুষের ঘাড়ে বোঝা বাড়াতে চাইছে না। তবে সাধারণ মানুষ নিজে থেকেই বাসের ভাড়া ১০ টাকা করে দিচ্ছেন। তাই বাসের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে বিবেচনা করা উচিত।”

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV