ফাইল ছবি

কলকাতা: এ এক অন্য সাফল্যের গল্প। এ সাফল্য মারণ ভাইরাসকে জয় করার, এ সাফল্য জীবনযুদ্ধে জয়ী হয়ে ফিরে আসার। পরিসংখ্যান অন্তত তাই বলছে। সূত্রের খবর কলকাতা ও রাজ্য পুলিশের মোট ১০০ জন কর্মী করোনা ভাইরাসের সঙ্গে লড়াইয়ে জয়ী হয়ে ফিরে এসেছেন। শুধু তাই নয়, তাঁরা যোগ দিয়েছেন কাজেও।

কলকাতা ও রাজ্য পুলিশের মোট ১৭৪ জন কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। এর মধ্যে ১০৬ জন কলকাতা পুলিশ কর্মী। এই ১০৬ জনের মধ্যে ৩৫জন ইতিমধ্যেই কাজে যোগ দিয়েছেন। ৫৬ জন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে ছাড়াও পেয়েছেন। গত দুদিনে ছাড়া পেয়েছেন ১৬ জন।

রাস্তায় নেমে কাজ করেন তাঁরা। আইন যাতে কেউ হাতে তুলে না নেন, লকডাউনের সব নিয়ম যাতে সবাই মেনে চলেন, সেই কাজে সারাদিন ব্যস্ত থাকেন তাঁরা। কনটেনমেন্ট জোনে তাঁদের কাজের চাপ আরও বেশি। গরফা, জোড়াবাগান, জোড়াসাঁকো, বউবাজার, প্রগতি ময়দান, আনন্দপুরে মত থানা এলাকা, দক্ষিণ ও জোড়াবাগান ট্রাফিক গার্ডের মত এলাকাগুলিতে একাধিক কনটেনমেন্ট জোন রয়েছে।

এরওপর আমফানের তান্ডবে লন্ডভন্ড গোটা রাজ্য। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দলের সঙ্গেই হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করেছেন পুলিশ কর্মীরা। সূত্রের খবর পুলিশ ট্রেনিং স্কুলের অবস্থা করোনার জেরে সবথেকে বেশি খারাপ। সেখানে ২৬ জন একসঙ্গে আক্রান্ত হয়েছেন।

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর প্রায় দুই সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে হয়। তবে আমফানের তাণ্ডবে সেই বিশ্রামটুকু পাননি কর্মীরা। বেসিরভাগই হাসপাতাল থেকে ফিরেই কাজে যোগ দিয়েছেন। বউবাজার থানার ওসি সিদ্ধার্থ চক্রবর্তী করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। মে মাসের শুরুর দিকে তাঁর সংক্রমণ ধরা পড়ে। বাইপাসের ধারে এক বেসরকারি হাসপাতালে ১২ দিন কাটিয়ে এখন সম্পূর্ণ সুস্থ তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর আরোগ্যের সাফল্যে ট্যুইট করেন।

তবে আমফানের জেরে দুই সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে পারেননি এই আধিকারিক। পিপিই কিট, ফেস শিল্ড নিয়ে কাজে নেমে পড়েছিলেন। তবে কলকাতা পুলিশের প্রত্যেক কর্মী তাঁর পাশে ছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। সহকর্মীরা কখনও একা থাকতে দেননি তাঁকে, প্রত্যেক সহকর্মী ও উর্দ্ধতন আধিকারিকদের কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন তিনি।

এই একই পরিস্থিতির সম্মুখীন হন জোড়াবাগান ট্রাফিক গার্ডের সার্জেন্ট ওয়াসিম নায়ার। যেদিন আমফান কলকাতায় আছড়ে পড়ে, সেদিনই কাজে যোগ দেন তিনি। কাজে যোগ দেওয়ার প্রথম দিন থেকে কনটেনমেন্ট জোনে ডিউটি করছেন তিনি। তাঁকে নিরাপদ এলাকায় ডিউটি দিতে চাওয়া হলেও, বারণ করে দেন তিনি।

এবাবেই লড়ছেন তাঁরা। কলকাতা ও রাজ্য পুলিশের একাধিক কর্মী এখনও হাসপাতালে। তবে তাঁরা দ্রুত সুস্থতার পথে বলেই সূত্রের খবর।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।