হায়দরাবাদ: বিরাট আধিপত্যে প্রথম ম্যাচেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজে এগিয়ে গেল ভারত৷ বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে জয় এনে দেন ক্যাপ্টেন কোহলি৷ কিন্তু এখানেই শেষ নয়, দু’ বছর আগে স্মৃতিচারণ করে ক্যারিবিয়ান পেসারের বিরুদ্ধে ছক্কা হাঁকিয়ে অভিনব সেলিব্রেশন করলেন বিরাট কোহলি৷

২০৭ রান তুলেও ম্যাচ জিততে পারল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ৷ কারণটা অবশ্যই বিরাটের বিধ্বংসী ব্যাটিং৷ বিরাট যথন ফর্মে থাকেন, তখন কোনও স্কোরই নিরাপদ নয়৷ এদিনও সেটা প্রমাণ করলেন ক্যাপ্টেন কোহলি৷ রান তাড়া করতে নেমে শুরুতে ছন্দ না-থাকেলও শেষ পর্যন্ত ৯৪ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন ভারত অধিনায়ক৷ আন্তর্জাতিক টি-২০ ক্রিকেটে এটাই কোহলির সেরা স্কোর৷ এর আগে বিরাটের সর্বোচ্চ স্কোর ছিল ৯০৷

১৬তম ওভারে কেসরিক উইলিয়ামসকে ছক্কা হাঁকিয়ে অভিনব সেলিব্রেশন করেন বিরাট৷ দু’ বছর আগে উইলিয়ামসের করা নোটবুক সেলিব্রেশনের নকল করে দেখান কোহলি৷ ওভারের প্রথম বল বোলারের মাথার উপর দিয়ে চার মারেন ভারত অধিনায়ক৷ এর পরের বল লেগ সাইডে ছক্কা মারেন বিরাট৷ তারপরই ব্যাট ছেড়ে দিয়ে অভিনভ সেলিব্রেশন করেন কোহলি৷

২০১১ সালে কোহলির উইকেট নিয়ে নোটবুক স্টাইলে বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যানকে সেন্ড-অফ জানিয়েছিলেন কেসরিক৷ এতদিন তা মনে রেখে ফিরিয়ে দিলেন বিরাট৷ এদিন ম্যাচের সেরা পুরস্কার নিয়ে কোহলি বলেন, ‘দু’ বছর আগে জামাইকায় উইলিয়ামস আমাকে আউট করে নোটবুক সেন্ড-অফ জানিয়েছিল৷ সেটা আমার মনে ছিল৷ তবে ম্যাচের পর আমাদের মধ্যে কোনও তিক্ততা থাকে না৷ আমরা হাই-ফাই করি ও একে অপরকে শ্রদ্ধা করি৷’

শুরুতেই মোটেই ছন্দে ছিলেন না ভারত অধিনায়ক৷ কিন্তু সময় যত গড়িয়েছে, বিরাটের ব্যাট কথা বলেছে৷ কোহলির ইনিংস এদিন কেমন ছিল তা পরিসংখ্যান দিয়ে বোঝা যায়৷ প্রথম ১০ বলে মাত্র ৭ রান করেন বিরাট৷ ১১-২০ বলে করেন ১৩ রান৷ এর পর ক্যারিবিয়ান বোলারদের বিরুদ্ধে রানের গতি বাড়াতে থাকেন কোহলি৷ ২১-৩০ বলে বিরাটের ব্যাট থেকে আসে ১৯ রান৷ তারপর ৩১-৪০ বলে ২৮ রন করেন ভারত অধিনায়ক৷ আর ৪১ থেকে ৫০ বলে করেন ২৭ রান৷

কোহলি ছাড়াও ক্যারিবিয়ানদের বোলারদের কাছে এদিন ভারি ছিল লোকেশ রাহুলের ব্যাট৷ ৪০ বলে ৬২ রান করে ডাগ-আউট হন টিম ইন্ডিয়ার এই ডানহাতি ওপেনার৷ ইনিংসে চারটি ছয় ও পাঁচটি বাউন্ডারি হাঁকান রাহুল৷ এদিন আন্তর্জাতিক টি-২০ কেরিয়ারে এক হাজার পূর্ণ করেন কর্নাটকের এই ডানহাতি৷ সেই সঙ্গে এদিন দেশের হয়ে টি-২০ ম্যাচে সপ্তম হাফ-সেঞ্চুরিটিও করেন রাহুল৷