পুণে: আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে মেঘের উপর দিয়ে হাঁটছে ভারত৷ ক্যারিবিয়ান সফরে ২-০ সিরিজ জয়ের পর ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজ জয়ও শুধু সময়ের অপেক্ষা বিরাটবাহিনী৷ প্রথম টেস্ট ২০৩ রানে জেতার পর দ্বিতীয় টেস্টেও ক্যাপ্টেন কোহলির ডাবল সেঞ্চুরিতে রানের পাহাড়ে টিম ইন্ডিয়া৷

টেস্ট কেরিয়ারে সপ্তমবার ডাবল সেঞ্চুরি করেছে ছাপিয়ে গিয়েছেন সচিন তেন্ডুলকর, বীরেন্দ্র সেওয়াগদের৷ বিরাটের আগে ভারতীয়দের মধ্যে টেস্ট ক্রিকেটে সর্বাধিক ছ’টি ডাবল সেঞ্চুরি ছিল সচিন ও সেহওয়াগের৷ কিন্তু এদিন দু’জনকে ছাপিয়ে প্রথমবার ভারতীয় হিসেবে সপ্তম দ্বিশতরানের মালিক হন কোহলি৷

নিজের পারফরম্যান্স সম্পর্কে বিসিসিআই টিভি-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিরাট বলেন,‘ কেরিয়ারে এই সাফল্যে আমি উচ্ছ্বসিত৷ দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ডাবল সেঞ্চুরি করে আমি দারুণ খুশি৷ কেরিয়ারের শুরু দিকে বড় স্কোর করতে সমস্যায় পড়তাম৷ কিন্তু ক্যাপ্টেন হওয়ার পর টিমের প্রতি আমি দায়িত্ব অনেক বেড়ে যায়৷ যা আমাকে আরও ভালো খেলতে সাহায্য করে৷ মানসিকভাবেও আমি এখন বড় ইনিংস খেলার জন্য প্রস্তুত৷’

টেস্টে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ স্কোর (২৫৪) করার পাশাপাশি এদিন টেস্ট ক্রিকেটে সাত হাজার রানের মাইলস্টোন পৌঁছন কোহলি৷ একই সঙ্গে টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে রিকি পন্টিংয়ের সর্বাধিক সেঞ্চুরিকে ছুঁয়ে ফেলেন বিরাট৷ সেই সঙ্গে অধিনায়ক হিসেবে ব্যাট হাতে ভাঙেন স্যর ডন ব্র্যাডম্যানের অনন্য নজির। অধিনায়ক হিসেবে নবম ১৫০ বা তার বেশি রানের ইনিংস খেলে অজি কিংবদন্তিকে টপকে যান বিরাট৷

শুক্রবার দ্বিতীয় দিনের শেষেই চালকের আসনে ভারত৷ ভারতের ৬০১ রানতাড়া করতে নেমে ৩৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা৷ এর্থাৎ এখনও ৫৬৫ রানে এগিয়ে টিম কোহলি৷ অর্থাৎ ফলো-অন বাঁচাতে এখনও ৩৬৬ রান করতে হবে ফ্যাফ ডু’প্লেসিদের৷ বিশাখাপত্তনমে সিরিজের প্রথম টেস্টে ফলো-অন বাঁচালেও ম্যাচ বাঁচাতে পারেনি প্রোটিয়ারা৷

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন টেস্টের সিরিজে ১-০ এগিয়ে কোহলি অ্যান্ড কোং৷ এই টেস্ট জিতলেই ঘরের মাঠে টানা ১০টি সিরিজ জিতে অস্ট্রেলিয়ার কৃতিত্বে ভাগ বসাবে টিম ইন্ডিয়া৷ ২০১৪ শেষ দিকে অস্ট্রেলিয়া সফরে হঠাৎ ধোনির টেস্ট অবসরে নেতা হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটে বিরাটের৷