সাউদাম্পটন: টাইটানিকের শহরে পৌঁছনোর পর বৃহস্পতিবার কোহলি অ্যান্ড কোম্পানি প্রথম গ্রুপ ট্রেনিং সেশন করার সুযোগ পেয়েছিল। আর ঠিক তার পরদিন অর্থাৎ, শুক্রবার বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের(WTC Final) চূড়ান্ত মহড়ায় নেমে পড়ল ভারতীয় দল। ইনট্রা-স্কোয়াড ম্যাচের(Intra-Squad match) মধ্যে দিয়ে কিউয়ি(Kiwi) বধের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেল শামি-পূজারাদের। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের(BCCI) তরফ থেকে পোস্ট করা ছবিতে অ্যাকশন মুহূর্তে ধরা দিলেন মহম্মদ সিরাজ, মহম্মদ সামি, শুভমন গিল, চেতেশ্বর পূজারারা।

গত ৩ জুন সাউদাম্পটনে(Southampton) পৌঁছনোর পর তিনদিন কঠোর রুম কোয়ারেন্টাইনে ছিল ভারতীয় ক্রিকেটাররা। তবুও বিশেষ অনুমতি-সাপেক্ষে কঠোর কোয়ারেন্টাইনেও ব্যক্তিগতভাবে গা-ঘামানোর অনুমতি মিলেছিল পূজারাদের। পরবর্তীতে বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন পর্ব কাটিয়ে শুরু হয়েছিল ছোট-ছোট গ্রুপে অনুশীলন পর্ব। এরপর টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের মেগা ফাইনালে তাঁদের প্রতিপক্ষ নিউজিল্যান্ড(New Zeland) যেদিন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে এজবাস্টনে(Edgbaston) দ্বিতীয় টেস্টে অংশগ্রহণ করে, ঠিক সেদিনই প্রথম চুটিয়ে দলগত অনুশীলন করে টিম ইন্ডিয়া।

অ্যাজেস বোল(Ageas Bowl) সংলগ্ন প্র্যাকটিস গ্রাউন্ডে রাহানে-কোহলিদের প্রথমদিনের অনুশীলনের ভিডিও শুক্রবার পোস্ট করা হয় বিসিসিআই-য়ের তরফে। মে মাসের শুরুতে জৈব বলয়ে কোভিড-হানার জেরে আইপিএল(IPL) স্থগিত হয়ে যাওয়ায় একেবারেই ম্যাচ প্র্যাকটিসের মধ্যে নেই ভারতীয় ক্রিকেটাররা। স্বাভাবিকভাবেই মেগা ফাইনালের আগে যে ক’টা প্র্যাকটিস সেশনের সুযোগ পাবেন কোহলিরা, সবক’টিতেই নিজেদের নিংড়ে দেওয়ার চেষ্টায় থাকবেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। কারণ বিশেষজ্ঞদের অনেকের মতেই এরকম মেগা ম্যাচের আগে ম্যাচ প্র্যাকটিস ভীষণ জরুরি।

আর কিউয়িরা যেহেতু ফাইনালের আগে ইংল্যান্ডের আবহাওয়ায় তাদেরই বিরুদ্ধে দু’ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলে নিচ্ছে, তাই উইলিয়ামসনদের এগিয়ে রাখছেন অনেকেই। কিউয়িরা কতোটা অ্যাডভান্টেজ বা ম্যাচ খেলার সুবিধা তাঁরা ফাইনালে কতোটা কাজে লাগায় সেটা সময় বলবে। কিন্তু তার আগে আপাতত কোহলিদের লক্ষ্য অনুশীলন এবং ইনট্রা-স্কোয়াড ম্যাচের মধ্যে দিয়েই ‘ব্ল্যাক-ক্যাপস'(Black Caps)-দের সমকক্ষ হয়ে ওঠা। উল্লেখ্য, প্রথম টেস্ট ড্র হলেও ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নিউজিল্যান্ডের অলরাউন্ড পারফরম্যান্স কিন্তু ভাবাবে কোহলিব্রিগেডকে। দ্বিতীয় টেস্টে প্রথম একাদশের ৬ জনকে বিশ্রামে পাঠিয়েও অ্যাডভান্টেজ বোল্টরা(Trent Boult)।

উল্লেখ্য, ১৮-২২ জুন অ্যাজেস বোলে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম সংস্করণের ফাইনাল। রিজার্ভ-ডে হিসেবে রাখা হয়েছে ২৩ জুন দিনটিকে। ম্যাচ অমিমাংসিত অবস্থায় শেষ হলে প্রথম বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ যুগ্মবিজয়ী হবে ভারত-নিউজিল্যান্ড, সেকথা জানিয়ে দিয়েছে আইসিসি(ICC)।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.