অর্ণব গোস্বামী ভারতের একজন প্রথমসারির সাংবাদিক। বর্তমানে তিনি ‘দ্য রিপাবলিক’য়ের এডিটর। তিনি ভারতীয় নিউজ চ্যানেল টাইমস নাওর মুখ্য সম্পাদক তথা উপস্থাপক ছিলেন। Combating Terrorism: The Legal Challenge শীর্ষক বইটি তিনি লিখেছেন।

অর্ণব গোস্বামীর জন্ম গুয়াহাটিতে। পিতা কর্নেল মনোরঞ্জন গোস্বামী ও মাতা সুপ্রভা গোস্বামী। তাঁর পিতৃকুলের রজনীকান্ত গোস্বামীও একজন উকিল ছিলেন। রজনীকান্ত গোস্বামী ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সক্রিয় নেতা ও একজন মুক্তিসংগ্রামী ছিলেন।

অন্যদিকে, তাঁর মাতৃকুলে গৌরী শঙ্কর ভট্টাচার্য্য একজন প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ ছিলেন। ভট্টাচার্য্য বহুদিন থেকে অসম বিধানসভার বিরোধী দলনেতা ছিলেন। গৌরী শঙ্কর ভট্টাচার্য্য একাধারে একজন মুক্তি সংগ্রামী, বুদ্ধিজীবী-সাহিত্যিক ও অসম সাহিত্য সভা পুরস্কারের প্রাপক ছিলেন।

অর্ণব গোস্বামীর শিক্ষা জীবন ভারতের বিভিন্ন স্থানে সম্পন্ন হয়েছিল। অর্ণব গোস্বামী নতুন দিল্লীর দিল্লী সেনা ছাউনীর মাউন্ট সেইন্ট মেরিজ স্কুল থেকে দশম শ্রেণীর পরীক্ষা উত্তীর্ণ হয়েছিলেন। এর পর দ্বাদশ শ্রেণী উত্তীর্ণ হয়েছিলেন জব্বলপুর সেনা ছাউনীর কেন্দ্রীয় বিদ্যালয় থেকে।

দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ন্তগত হিন্দু কলেজ থেকে সমাজশাস্ত্র বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রী নেওয়ার পর অর্ণব গোস্বামী ১৯৯৪ সালে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ন্তগত সেইন্ট এন্থনীজ কলেজ থেকে সামাজিক নৃতত্ত্ব বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি ফেলিক্স ফেলোশিপের প্রাপক ছিলেন। ২০০০ সালে তিনি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়র আন্তঃরাষ্ট্রীয় অধ্যয়ন বিভাগ (সিডনি সাসেক্স কলেজ) এ একজন ভিজিটিং ফেলো ছিলেন। তিনি সেই সময়ে ডিসি পাবেট ফেলো ছিলেন।

২০০৫ সালে অর্ণব গোস্বামী এনডিটিভি-তে তাঁর কেরিয়ার আরম্ভ করেন। এনডিটিভি-তে তিনি দৈনিক বার্তা পরিবেশক হিসাবে কাজ করার সাথে ডিডি মেট্রো চ্যানেলে সম্প্রচারিত নিউজ টুনাইট শীর্ষক অনুষ্ঠানের জন্য কাজ করেন। তিনি সোমবার থেকে শুক্রবার প্রতিদিন রাতে নিউজ আওয়ার শীর্ষক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত করতেন।

নিউজ আওয়ার ছিল যেকোনো চ্যানেলে পরিবেশিত বক্তব্যের বিশ্লেষণমূলক অনুষ্ঠানের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময়ের জন্য নিরবছিন্নভাবে প্রচারিত অনুষ্ঠান (১৯৯৮-২০০৩)। এনডিটিভির একজন সম্পাদক হিসেবে তিনি চ্যানেলটির সবরকম সম্পাদনার দায়িত্বে ছিলেন। এই অনুষ্ঠানের জন্যই তিনি ২০০৪ সালে এশিয়ান টেলিভিশন পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে এশিয়ার শ্রেষ্ঠ বার্তা পরিবেশকের পুরস্কার লাভ করেন।

অর্ণব গোস্বামীর উল্লেখনীয় কাজের মধ্যে ২০০৬ সালের মুম্বই রেল বোমা বিস্ফোরণের প্রচার, ২০০৮ সালের বিতর্কিত সংসদের আস্থা ভোটের সময়ে নিরবছিন্ন ২৬ ঘণ্টা পরিবেশন, ২০০র বেশি রাজনীতিকদের সাক্ষাৎকার ও এই ভোটের বিশ্লেষণ ও ২০০৮ সালের মুম্বই সন্ত্রাসবাদী আক্রমণের সময়ে ৬৫ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে বার্তা পরিবেশন ইত্যাদি অন্যতম।

তিনি ‘ফ্র্যাঙ্কলী স্পীকিং উইথ অর্ণব’ নামে আরেকটি অনুষ্ঠানের সূত্রধার। এই অনুষ্ঠানটিতে বেনজির ভুট্টো, প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী গর্ডন ব্রাউন, আফগানিস্তানএর রাষ্ট্রপতি হামিদ কারজাই, নির্বাসিত তিব্বতের নেতা তথা ধর্মগুরু দলাই লামা, আমেরিকার বৈদেশিক সচিব হিলারি ক্লিন্টন, সোনিয়া গান্ধী সহ বহু প্রখ্যাত ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেছেন। এই অনুষ্ঠানে ভারতের রাজনীতি, ক্রীড়া, চলচ্চিত্র ও কর্পোরেট ক্ষেত্রের অন্য বহু স্বনামধন্য ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেছেন।

সৌঃ উইকিপিডিয়া

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ