কলকাতা: পুলিশ ও স্বাস্থ্য দফতরের টালবাহানায় রাতভর দোকানেই পড়ে রইল করোনায় মৃতের দেহ। শেষমেশ স্থানীয়দের উপর্যুপরি আবেদনের ভিত্তিতে কলকাতা পুরসভা দেহ সরাতে উদ্যোগী হয়। উত্তর কলকাতার গৌরীবাড়ি এলাকার এই ঘটনায় প্রশাসনের বিরুদ্ধেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন বাসিন্দারা।

গৌরীবাড়ি এলাকার একটি মিষ্টির দোকানের ওই কর্মীর দোকানেই মৃত্যু হয়। বেশ কিছুদিন ধরেই করোনার উপসর্গ দেখা দিয়েছিল ওই ব্যক্তির। একটানা কয়েকদিন ধরে ভুগছিলেন তিনি।

তাঁর করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছিল। মঙ্গলবার ওই ব্যক্তির করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। যদিও এই ব্যক্তিকে হাসপাতালে ভর্তির কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

বুধবার বিকেলে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওই ব্যক্তির মৃত্যুর খবর পুলিশকে জানানো হয়। এমনকী স্বাস্থ্য দফতরেও যোগাযোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

তবুও দীর্ঘক্ষণ কেটে গেলেও পুলিশ বা স্বাস্থ্য দফতরের তরফে ওই ব্যক্তির দেহ সরিয়ে নিয়ে যেতে কোনও তৎপরতা নেওয়া হয়নি। যা নিয়ে ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

বুধবার রাতভর ওই দোকানেই পড়েছিল মৃতদেহ। শেষমেশ বৃহস্পতিবার সকালে কলকাতা পুরসভার তরফে দেহ সরানো হয়। এদিকে, করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরেও ওই ব্যক্তিকে কেন হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করা হল না, তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ