স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বাগবাজারে সারদা মায়ের বাড়ি সংলগ্ন এলাকার সৌন্দর্যায়নের দৌলতে বরাত ফিরল লাগোয়া বস্তির বাসিন্দাদের। প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে ওই বস্তির তিনশো পরিবারের জন্য দু’কামরার ফ্ল্যাট বানাল পুর-প্রশাসন। মঙ্গলবার প্রথম পর্যায়ে ফ্ল্যাট বিলি করা হল৷ এদিন ৩৫ জন বস্তিবাসীর হাতে ফ্ল্যাটের চাবি তুলে দেন মেয়র ফিরহাদ হাকিম৷ বাকিদের ধাপে ধাপে ফ্ল্যাট হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি৷

রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিবেকানন্দ, ভগিনী নিবেদিতা-সহ মহাপুরুষদের স্মৃতি বিজড়িত বিভিন্ন স্থানকে আকর্ষণীয় করে তুলতে উদ্যোগী হন। গঙ্গার ধারে মায়ের বাড়িও পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় করে তুলতে নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী। বস্তি বিভাগ এ ব্যাপারে একটি প্রকল্প রিপোর্ট (ডিপিআর) তৈরি করে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে পাঠায়। কেন্দ্রীয় সরকার ওই প্রকল্প বাবদ সাড়ে তিন কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। বাকি টাকা রাজ্য সরকার ও পুরসভা করেছে বলে এদিন মহানাগরিক ফিরহাদ হাকিম দাবি করেছেন৷

বস্তি মানেই যে নোংরা পরিবেশ নয়, এখানে তার নিদর্শন দেখাতে সব রকমের ব্যবস্থা নিয়েছে পুরসভা। ঘরবাড়ি ছাড়াও সেখানে কমিউনিটি হল, খেলার মাঠ, উদ্যান সবই থাকবে। পুরো বস্তি এলাকা সাজানো হবে উজ্জ্বল আলোয়। মায়ের বাড়িকে আকর্ষণীয় করে তুলতেই ওই প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে বলে পুরসভা জানিয়েছে৷ ২০১৪ সালে প্রায় ৪ বিঘা জমির উপরে এই বস্তি গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়।

এর জন্য রাজ্য সরকারের অধীনে থাকা মেয়ো হাসপাতালের কিছু জমিও নিচ্ছে পুরসভা। সেখানে ১৫টি বিল্ডিং নির্মাণ করা হবে। প্রতিটি বিল্ডিং হবে পাঁচতলার। বিল্ডিং পিছু ২০টি ফ্ল্যাট থাকবে। প্রতিটি ফ্ল্যাটে দু’টি শোওয়ার ঘর, একটি রান্নাঘর, বাথরুম, বসার ঘর ও বারান্দা থাকবে। এ ছাড়া, স্বাস্থ্যকেন্দ্র এবং বৃত্তিমূলক শিক্ষাকেন্দ্রও করা হবে বস্তিতে। একই সঙ্গে মায়ের বাড়ি সৌন্দর্যায়নের কাজ শুরু করেছে পুরসভা।