দুবাই: আইপিএলে ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে দ্রুততম ২০০০ রানের মালিক হলেন কেএল রাহুল। বৃহস্পতিবার দুবাইয়ে ত্রয়োদশ আইপিএলের দ্বিতীয় ম্যাচে এই অনন্য নজির গড়লেন কিংস ইলেভেন পঞ্জাব অধিনায়ক। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল ২০০০ রানের গন্ডি পেরনোর পথে কিংবদন্তি সচিন রমেশ তেন্ডুলকরের আট বছরের পুরনো রেকর্ড ভাঙলেন রাহুল।

এর আগে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে দ্রুততম ২০০০ রানের নজির ছিল সচিন তেন্ডুলকরের দখলে। ২০১২ আইপিএল মরশুমে ৬৩ ইনিংসে ২ হাজার রানের মাইলস্টোন স্পর্শ করেছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের কিংবদন্তি। সেই নজির ভেঙে আইপিএলে এদিন ৬০ ইনিংসে ২ হাজার রানের গন্ডি ছুঁলেন রাহুল। দুবাইয়ে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে এই মাইলস্টোনে পৌঁছলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার ম্যাচের দ্বিতীয় ওভারে আরসিবি ফাস্ট বোলার ডেল স্টেইনের ডেলিভারি বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে আইপিএলে ২০০০ রানের এলিট ক্লাবে নাম লিখিয়ে নেন সাম্প্রতিক সময়ে জাতীয় দলের অন্যতম ইউটিলিটি ক্রিকেটার। ২০১৮ কিংস ইলেভেন পঞ্জাবে যোগদানের পর থেকেই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগে ফর্মের তুঙ্গে রয়েছেন ২৮ বছরের এই দক্ষিণী ক্রিকেটার। গত মরশুমে ১৪টি লিগ ম্যাচে ১টি শতরান এবং ৬টি অর্ধশতরান সহযোগে ৫৯৩ রান এসেছিল রাহুলের ব্যাট থেকে। সর্বোচ্চ অপরাজিত ১০০।

ফলস্বরূপ গতবছরের অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন এবার দলবদল করায় ফ্র্যাঞ্চাইজি টিম ম্যানেজমেন্ট রাহুলের হাতে নেতৃত্বের ভার তুলে দিতে দু’বার ভাবেনি। যদিও আইপিএলে দ্রুততম ২০০০ রানের নজিরটি অবশ্যই রাহুলের ফ্র্যাঞ্চাইজি সতীর্থ ক্রিস গেইলের দখলে (৪৮ ইনিংস)। বৃহস্পতিবার দুবাইয়ে টস জিতে কিংস ইলেভেন পঞ্জাবকে প্রথমে ব্যাটিং’য়ের আমন্ত্রণ জানান আরসিবি অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

উল্লেখ্য, প্রথম ম্যাচে দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে সুপার ওভারে হেরে ত্রয়োদশ আইপিএল অভিযান শুরু করেছে রাহুলের কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতেও সফল হতে পারেননি পঞ্জাব অধিনায়ক। দিল্লির বিরুদ্ধে রাহুলের ব্যাট থেকে এসেছিল ১৯ বলে মাত্র ২১ রান।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।