আবুধাবি: মরু শহরে আইপিএল ২০২০ জমজমাট৷ লিগের দ্বিতীয়ার্ধে প্রতিটি দলই রয়েছে প্লে-অফের ইঁদুর দৌড়ে৷ বুধবার আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে লড়াই পয়েন্ট তালিকায় তিন ও চার নম্বরে থাকা দুই দলের মধ্যে৷ তিন নম্বর থেকে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে কলকাতা নাইট রাইডার্স৷

রবিবার সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে সুপার ওভার জিতে প্রথম চার নিজেদের জায়গা ধরে রেখেছে কেকেআর৷ ৯ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে রয়েছে নাইটরা৷ আজ বিরাট কোহলিদের বিরুদ্ধে জিতলে প্লে-অফের দৌড়ে আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে কেকেআর৷

অন্য দিকে রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে দলকে জিতিছেন দারুণ ফর্মে থাকা এবি ডি’ভিলিয়ার্স৷ রাজস্থানের বিরুদ্ধে ৭ উইকেটে জিতে ৯ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে রয়েছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর৷ অর্থাৎ প্লে-অফের অনেকটাই কাছে কোহলি অ্যান্ড কোং৷ শেষ পাঁচটি ম্যাচের অন্তত দু’টি জিতলেই প্লে-অফের ছাড়পত্র পেয়ে যেতে পারে আরসিবি৷

এবারের আইপিএলে আরসিবি-র কাছে অন্যরকম৷ টুর্নামেন্টে অন্যতম ধারাবাহিক দল এবার রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স৷ ব্যাটিংয়ে বিরাট ও এবিডি-র ফর্ম চিন্তা রাখছে প্রতিপক্ষ দলগুলিতে৷ কেকেআরও ব্যতিক্রম নয়৷ লিগের প্রথম লড়াইয়ে আরসিবি-র বিরুদ্ধে নাইটদের ম্যাচটা মোটেই সুখের হয়নি৷ শরজায় লড়াইয়ে বিরাটদের কাছে ৮২ রানে হেরেছিল কেকেআর৷ এরপর অবশ্য অনেক দুই দলের উত্থান-পতন হয়েছে৷

আরসিবি-র দলে বিশেষ কিছু পরিবর্তন না-হলেও নাইটদের নেতৃত্বেই বদল হয়েছে৷ দীনেশ কার্তিকদের পরিবর্তে নাইটদের নেতৃত্বের ব্যাটন উঠেছে ইয়ম মর্গ্যানের হাতে৷ তাঁর নেতৃত্বে দু’টি ম্যাচ খেলেছে কেকেআর৷ মর্গ্যানের নেতৃত্বে প্রথম ম্যাচে মু্ম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে লজ্জাজনক হারের পর গত ম্যাচে সানরাইজার্সের বিরুদ্ধে সুপার ওভারে জয় পেয়েছে মর্গ্যানের কলকাতা৷

এছাড়াও কোহলিদের বিরুদ্ধে সন্দেহজনক বোলিং অ্যাকশনের জন্য পরের দু’টি ম্যাচে খেলেলনি নাইটদের ম্যাচ উইনার সুনীল নারিন৷ তবে সানরাইজার্স ম্যাচের আগেই ক্লিনচিট পেয়েছিলেন নারিন৷ তবুও হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে নারিনকে খেলায়নি কেকেআর থিঙ্কট্যাঙ্ক৷ বিরাটদের বিরুদ্ধে ক্যারিবিয়ান এই স্পিনারের মাঠে ফেরার সম্ভাবনা প্রবল৷

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।