কলকাতা: আই পি এল নিলাম বাকি আর মাত্র তিন সপ্তাহ৷ তারপরই চিত্রটা পরিষ্কার হয়ে যাবে একাদশতম আই পি এলে কে খেলবে কোন দলে?

তাঁর আগে ক্রিকেটার রিটেনশন করে প্রাথমিকভাবে কিছুটা হলেও দল গুছিয়ে নিয়েছে ফ্যাঞ্চাইজিগুলি৷ মূলত অধিনায়ক আর ম্যাচ উইনারদেরই মোটা অঙ্কের বিনিময়ে নিলামের আগেই রিটেন করা হয়েছে৷ যেমন চেন্নাইয়ে ফিরেছেন ধোনি, মুম্বই ধরে রেখেছে রোহিতকে,বেঙ্গালুরু কোহলিকে, হায়দরাবাদ ওয়ার্নারকে আর রাজস্থান রয়্যালসে ফিরেছে স্মিথ৷ বাকিরা যখন অধিনায়ক পাকা করে ফেলে নিলামের আগে কড়ির অঙ্ক বুঝে ঘুঁটি সাজাচ্ছেন তখনই মাষ্টারস্ট্রোক কেকেআর-এর৷

নারিন-রাসেলকে রিটেন করলেও বুড়ো ঘোড়া গম্ভীরকে মোটা অঙ্কে দলে টানেনি শাহরুখের ফ্যাঞ্চাইজি৷ ক্যাপ্টেন তো সাফল্য দিয়েছে, তাও এমন নিষ্ঠুরতা৷ গম্ভীর এমনটা বলতেই পারেন৷ কিন্তু নিলামে যখন অপশন প্রচুর তখন কেনই বা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেন না এমন একজনকে মোটা অঙ্কে বয়ে বেড়াবে কেকেআর?

ভবিষ্যতে শাহরুখে দলের হাল ধরতে পারেন যারা-
শিখর ধাওয়ান- হায়দরাবাদে জায়গা পাকা করতে পারেনি শিখর ধাওয়ান৷ ওয়ার্নার আর ভুবনেশ্বর কুমারকেই রিটেন করেছে হায়দরাবাদ৷ ধাওয়ানকে টার্গেট করে বাজি ধরতে পারেন বাদশাহ৷ বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং নিয়ে কোনও প্রশ্ন তোলা মূর্খামি৷ আলোচ্য বিষয় ধাওয়ানের নেতৃত্ব! আই পি এল-এর সপ্তম সংস্করণে অতীতে অধিনায়কত্ব করার অভিজ্ঞতা রয়েছে ধাওয়ানের৷ গম্ভীরের বিকল্প কিন্তু হাতের কাছে রয়েছে৷ শেষ সিদ্ধান্তটা অবশ্য কিং-এরই৷ মিটিংয়ে বিকল্প হিসেবে কিন্তু ধাওয়ানকে ভাবতেই পারেন কেকআর থিঙ্কট্যাঙ্ক৷

অজিঙ্ক রাহানে- স্বপের ফর্মের ধারে কাছে নেই, তবে অধিনায়ক হিসেবে মন্দ হবেন না৷ মাথা ঠান্ডা, চাপ সামলাতে পারেন৷ কোহলির অনুপস্থিতিতে নেতৃত্ব দিয়ে টেস্ট জিতিয়েছেন ভারতকে৷ নিন্দুকরা বলবেন টি-টোয়েন্টি ফর্ম্যাট সম্পূর্ণ আলাদা৷ তবে এখানেও অ্যাপ্লিকেশনটাই আসল৷ ম্যাচ রিডিং স্কিলও দারুণ রাহানের৷ ডানহাতির উপর বাজি ধরে এগোতেই পারে টিম কেকেআর৷

এ তো গেল দেশীয় ক্রিকেটাররা, বিদেশিদের মধ্যে কাউকে দলে নিয়ে তাঁর কাঁধে অধিনায়কের দায়িত্ব তুলে দিতে পারে কেকেআর শিবির৷ সেক্ষত্রে এগিয়ে ডুপ্লেসি৷ দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক, নেতৃত্বের চাপ সামলাতে সিদ্ধহস্ত৷ সমস্যা হওয়ার কথা নয়৷ পাল্লা ভারী নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনেরও৷ দলকে পরিচালনা করার অভিজ্ঞতা রয়েছে যথেষ্ট৷ তাই কিউয়ি অধিনায়কের নামটা একবার ভেবে দেখতেই পারে কেকেআর৷

তবে নতুন যেই অধিনায়ক হোক না কেন, ভয় ডরহীন অধিনায়ক গম্ভীরকে মিস করবে ক্রিকেটের নন্দনকানন৷ টি-টোয়েন্টিতেও দুটো স্লিপ কিংবা ফরোয়ার্ড শট লেগ এনে ব্যাটসম্যানদের উপর চাপ তৈরি করতে দেখা গিয়েছে গম্ভীরকে৷ তাই শেষটাই গম্ভীরকেই আরও একবার ভেবে দেখতে পারেন শাহরুখবাজিগরের হাতের তাশ তো এখনও ফুরোয়নি৷ রাইট টু ম্যাচ কার্ডে নিলামের দিনই তিনটে ক্রিকেটারকে রিটেন করার সুযোগ এখনও আছে, সেদিনই হয়ত আসল মাষ্টারস্ট্রোকটা দেবেন বাদশার ফ্যাঞ্চাইজি৷ নাইট অধিনায়কের অপেক্ষায় দিন গুনছে কলকাতা৷