জয়পুর: অপেক্ষাকৃত সহজ লক্ষ্য ছিল৷ তবে এত সহজে কলকাতা নাইট রাইডার্স রাজস্থান রয়্যালসের কাছ থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নেবে, তা আন্দাজ করা যায়নি৷ সোয়াই মান সিং স্টেডিয়ামে প্রথমে ব্যাট করে রাজস্থান নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৩৯ রান তোলে৷ জবাবে ব্যাট করতে নেমে কলকাতা ১৩.৫ ওভারে ২ উইকেটের বিনিময়ে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১৪০ রান তুলে নেয়৷ ৩৭ বল বাকি থাকতেই ৮ উইকেটের অনায়াস জয় তুলে নেয় কেকেআর৷

চলতি আইপিএলের পাঁচ ম্যাচে নাইটদের এটি চতুর্থ জয়৷ প্রথম পাঁচ ম্যাচ থেকে ৮ পয়েন্ট সংগ্রহ করে কেকেআর চেন্নাই সুপার কিংসকে টপকে লিগ টেবিলের শীর্ষে উঠে আসে৷ চেন্নাইও পাঁচ ম্যাচের চারটিতে জিতে ৮ পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে৷ তবে ধোনিদের তুলনায় কার্তিকদের নেট-রানরেট ভালো হওয়ায় হুইসল পড়ুদের পিছনে ফেলে দেয় কলকাতা৷

আরও পড়ুন: আইপিএলে টানা হাফ-ডজন হার কোহলিদের

রাজস্থান ইনিংসের শুরুটা মনে রাখার মতো হয়নি৷ দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই প্রসিদ্ধ কৃষ্ণা আউট করেন রাহানেকে (৫)৷ বাটলার-স্মিথ জুটি দ্বিতীয় উইকেটে ৭২ রান যোগ করেন বটে, তবে রান তোলার গতি বাড়াতে পারেননি৷ বাটলার ৩৪ বলে ৩৭ রান করে আইপিএলে অভিষেককারী গারনির প্রথম শিকার হন৷ আউট হওয়ার আগে তিনি ৫টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন৷

রাহুল ত্রিপাঠী ৮ বলে ৬ রান করে হ্যারির দ্বিতীয় শিকার হন৷ স্টিভ স্মিথ ৭টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ৫৯ বলে ৭৩ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ স্টোকস ১৪ বলে ৭ রান করে নটআউট থেকে যান৷ কেকেআরের পাঁচজন বোলারই অত্যন্ত নিয়ন্ত্রিত বোলিং করেন৷ আন্দ্রে রাসেলকে এই ম্যাচে বোলিং থেকে বিশ্রাম দেয় কলকাতা৷ হ্যারি আইপিএলের প্রথম ম্যাচেই ২৫ রানে ২ উইকেট নিয়ে নজর কাড়েন৷

আরও পড়ুন: রাহুলের ভাগ্যের কাছে ফিকে মাহি-ম্যাজিক, ভাইরাল ভিডিও

পালটা ব্যাট করতে নেমে কলকাতার দুই ওপেনার ক্রিস লিন ও সুনীল নারিন শুরু থেকেই ক্রিজে ঝড় তোলেন৷ অবশ্য দু’জনেই ভাগ্যের বড়সড় সহযোগীতা পান৷ চতুর্থ ওভারের ধবল কুলকার্নির প্রথম বলে নারিনের ক্যাচ ফেলেন রাহুল ত্রিপাঠী৷ ঠিক পরের বলেই বোল্ড হন লিন৷ তবে বেল না পড়ায় নিয়মের ফাঁক গলে সে যাত্রায় বেঁচে যান লিন৷ শেষমেশ নারিন ৬টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ২৫ বলে ৪৭ রান করে শ্রেয়স গোপালের বলে আউট হন৷ গোপালের বলেই আউট হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে ৩২ বলে ৫০ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন লিন৷ তিনিও ৬টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন গোটা ইনিংসে৷

শুভমন গিলকে সঙ্গে নিয়ে রবিন উথাপ্পা কেকেআরকে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে দেন৷ উথাপ্পা ১টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে ১৬ বলে ২৬ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ গিল ১০ বলে ৬ রান করে নটআউট থাকেন৷ ম্যাচের সেরা হয়েছেন হ্যারি৷