মুম্বই- ক্রমশ জট পাকাচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মামলা। একের পর এক তথ্য বেরিয়ে আসছে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে। কিছুদিন আগেই সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা কে কে সিং অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছেন। আর তার কয়েক দিনের মধ্যেই এই তদন্ত সিবিআই এর হাতে তুলে দেওয়া হয়। এর মধ্যে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন চক্রবর্তী।

আজ মঙ্গলবার সেই আবেদনের ভিত্তিতে শুনানি রয়েছে। অন্যদিকে সুশান্তের বাবা আরো একটি বিস্ফোরক তথ্য ফাঁস করেছেন। টাইমস নাও এর প্রতিবেদন থেকে এমনই জানা যাচ্ছে। সুশান্তের বান্ধবী তথা অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর সঙ্গে একসময় কথা বলার চেষ্টা করেছিলেন সুশান্তের বাবা। ছেলের খোঁজ না পেয়ে মেসেজ করেছিলেন রিয়া চক্রবর্তী ও তার ম্যানেজার শ্রুতি মোদীকে। সেই হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট এবার প্রকাশ্যে এলো।

২০১৯ এর নভেম্বর মাসে সুশান্ত কেমন আছে তা জানতে রিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন কে কে সিং। রিয়ার কাছে বারবার জানতে চেয়েছিলেন কেমন আছে সুশান্ত। আর সুতি কে বলেছিলেন মুম্বই আসার ফ্লাইট এর টিকিট বুক করে দিতে।

হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট থেকে জানা যাচ্ছে সুশান্তের বাবা রিয়াকে মেসেজ করেছিলেন, “তুমি যখন জানো যে আমি সুশান্তের বাবা তাহলে কথা বলছো না কেন? কী হয়েছে? বন্ধু হয়ে তুমি যখন ওর দেখাশোনা করছ আর চিকিৎসা করাচ্ছ, সমস্ত কিছু জানার আমারও তো কর্তব্য রয়েছে। তাই আমায় ফোন করে সমস্তটা জানাও।”

এছাড়া শ্রুতি মোদিকে একটি মেসেজ পাঠিয়েছিলেন কে কে সিং। তিনি লিখেছিলেন, “আমি জানি সুশান্ত ও ওর কাজকর্ম তুমিই দেখাশোনা করো। ও এখন কী অবস্থায় আছে সেটা জানতে কথা বলতে চাইছি। কাল সুশান্তের সঙ্গে কথা হলো। ও বললো খুব চিন্তায় আছে। এখন তুমিই ভাবো বাবা হিসেবে আমার কেমন চিন্তা হচ্ছে।

এই জন্য তোমার সঙ্গে কথা বলতে চাইছিলাম। তুমি যখন কথা বলছ না তখন আমাকেই মুম্বাই যেতে হবে। ফ্লাইটের টিকিট পাঠিও।” এই বিষয়টি আজ সুপ্রিম কোর্টে পেশ করা হবে বলে জানা যাচ্ছে। সুপ্রিম কোর্ট আজ জানাবে এই তদন্তের সঙ্গে মুম্বই পুলিশ জড়িত থাকবে কিনা। প্রসঙ্গত সোমবার ইডি অফিসে হাজির দেন রিয়া চক্রবর্তী। সঙ্গে ছিলেন তার ভাই সৌভিক চক্রবর্তী ও বাবা ইন্দ্রজিৎ চক্রবর্তী।

মানি লন্ডারিং এর কোনো যোগ আছে কিনা সেই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাদের। সুশান্তের বাবা এফআইআর-এ অভিযোগ করেছিলেন তার ছেলের ব্যাংক থেকে ১৫ কোটি টাকা ট্রান্সফার হয়েছে অন্য একটি অ্যাকাউন্টে।

এই সমস্ত আকাউন্টের পাসওয়ার্ড পিন রিয়া চক্রবর্তী জানতেন এবং তার অপব্যবহার করেছেন বলেও দাবি করেছেন কে কে সিং। আর তারপরেই মানি লন্ডারিংয়ের মামলা হয় রিয়ার বিরুদ্ধে। রিয়ার বার্ষিক আয় ১২-১৪ লক্ষ টাকা। কিন্তু তা সত্বেও মুম্বইয়ের দুটি কেন্দ্রীয় এলাকায় এমন বিলাসবহুল প্রপার্টি তিনি কিভাবে কিনলেন সেই বিষয়টিও খতিয়ে দেখছে ইডি।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও