শারজা: ইউনিভার্স বস ইজ ব্যাক অ্যান্ড কিংস ইলেভেন পঞ্জাব ইজ অন৷ টানা পাঁচ ম্যাচ হেরে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া প্রীতি জিন্টার দল ক্রিস গেইলের প্রত্যাবর্তনে জয়ে ফিরল৷ বৃহস্পতিবার শারজায় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে হেলায় হারাল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব৷ ১৭২ রান তাড়া করতে নেমে ৮ উইকেট ম্যাচ জিতে নেয় পঞ্জাব৷

ব্যাট হাতে দলকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন ক্যাপ্টেন লোকেশ রাহুল৷ তাঁকে যোগ্য সঙ্গ দেন ময়াঙ্ক আগরওয়াল এবং ক্রিস গেইল৷ মরশুমে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে দুরন্ত হাফ-সেঞ্চুরি করে দলকে জেতানোর পাশাপাশি বুঝিয়ে দিলেন তিনি, ফুরিয়ে যাননি৷ তবে ম্যাচের শেষ ওভার ছিল রোমাঞ্চে ভরা৷ শেষ ওভারে মাত্র ২ রান করলেই জিতবে, এই অবস্থায় প্রথম দু’ বল ডট৷ তৃতীয় বলে এক রান নেন গেইল৷ কিন্তু চতুর্থ ডেলিভারি ফের ডট৷ পঞ্চম বলে গেইল রান-আউট৷ সুতরাং শেষ বলে জিততে হলে এক রান করতে হবে৷ তবে তার তোয়াক্কা না-করে স্টেপ-আউট করে চাহালকে মাঠের বাইরে পাঠিয়ে ম্যাচ জিতে নেয় কিংস ইলেভেন৷

প্রথম লেগে সাতটি ম্যাচের মধ্যে একটি ম্যাচ জিতলেও দ্বিতীয় লেগের প্রথম ম্যাচেই জয় পেল কিংস ইলেভেন৷ জয় এল প্রথম পর্বে একমাত্র জয় পাওয়া সেই রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্সের বিরুদ্ধে৷ ১৭১ রান তাড়া করতে নেমে কিংস ইলেভেনের দুই ওপেনার লোকেশ রাহুল ও ময়াঙ্ক আগরওয়াল ৭৮ রান যোগ করে দারুণ শুরু করেন৷ মাত্র ২৫ বলে তিনটি ছয় ও চারটি বাউন্ডারি-সহ ৪৫ রানের ইনিংস খেলেন আগরওয়াল৷ তারপর ক্রিজে আসেন গেইল৷ মরশুমে প্রথমবার৷ শুরুতেই একটি দেখে খেলে নিজমূর্তি ধারণ করেন গেইল৷

শেষ পর্যন্ত ৪৫ বলে পাঁচটি ছক্কা ও একটি চারের সাহায্যে ৫৩ রানের ইনিংস খেলেন গেইল৷ মরশুমেই প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেই হাফ-সেঞ্চুরি করেন কিংস ইলেভেনের এই বাঁ-হাতি৷ একই সঙ্গে এদিন আইপিএলে ৪৫০০ রানের মাইলস্টোন পূর্ণ করেন গেইল৷ এছড়া ৬১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন কিংস ইলেভেন ক্যাপ্টেন রাহুল৷ ৪৯ বলের ইনিংসে পাঁচটি ছয় একটি বাউন্ডারি মারেন রাহুল৷ ম্যাচের সেরা হন তিনি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.