চণ্ডীগড়: শেষ ৮ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে আত্মসমপর্ণ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের দিল্লি ক্যাপিটালসের৷ শনিবার ঘরের মাঠে কলকাতা নাইটরাইডার্সের বিরুদ্ধে সুপার ওভারে জয় ছিনিয়ে নিলেও সোমবার মোহালিতে কিংস ইলেভেনের কাছে ১৪ রানে হারল দিল্লি৷ ২০১৯ আইপিএল প্রথম হ্যাটট্রিকের মালিক স্যাম কারেন৷

প্রীতি জিন্টার পঞ্জাবের বিরুদ্ধে ১৬৭ রান তাড়া করে জয়ের কাছাকাছি পৌঁছেও হার মানল সৌরভের দিল্লি৷ ১৫৬ রানে অল-আউট হয়ে যায় শ্রেয়স আইয়াররা৷ ঋষভ পন্ত আউট হতেই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে দিল্লির ইনিংস৷ ১৪৪ রানে চার উইকেট থেকে ১৫২ রানে ১০ উইকেট পড়ে দিল্লির৷ পঞ্জাবের জয়ের নায়ক স্যাম কারেন৷ ২.২ ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ১১ রান খরচ করে ৪টি উইকেট তুলে নিয়ে পঞ্জাবকে জেতান ইংল্যান্ডের বছর কুড়ির বাঁ-হাতি পেসার৷ দু’টি করে উইকেট নিয়েছেন অশ্বিন ও মহম্মদ শামি৷

দিল্রি ক্যাপিটালসের মাত্র চার ব্যাটসম্যান দু’ অংকের রানে পৌঁছন৷ রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি দিল্লির৷ ইনিংসের প্রথম বলেই পৃথ্বী শ-কে তুলে নিয়ে সৌরভদের দলকে জোর ধাক্কা দেন কিংস ইলেভেন ক্যাপ্টেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন৷ কেকেআর ম্যাচে ৯৯ রানের দুরন্ত ইনিংস খেলা পৃথ্বী প্রথম বলেই উইকেটের পিছনে ক্যাচ দিয়ে ডাগ-আউটে ফেরেন৷

শুরুতেই পৃথ্বীর উইকেট হারালেও শিখর ধাওয়ান (৩০), শ্রেয়স আইয়ার(২৮), ঋষভ পন্ত(৩৯) ও কলিন ইনগ্রামের (৩৮) ব্যাটে লড়াইয়ে ফেরে দিল্লি৷ কিন্তু বাকিরা কেউ পাঁচ রানের গণ্ডি টপকাতে পারেননি৷ দিল্লি ইনিংসে মোট পাঁচ জন শূন্য রান করে ডাগ-আউটে ফেরেন৷ কিন্তু ডাগ-আউটে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, রিকি পন্টিং, প্রবীন আমরে বসে থাকা সত্ত্বেও দিল্লি ব্যাটসম্যান হিরাকিরি পড়ে যায়৷ ক্রিজে থাকলেই ম্যাচ জেতা সম্ভব, এ অবস্থায় পঞ্জাবকে ম্যাচ ‘উপহার’ দিয়ে আসে দিল্লি৷

টস জিতে এদিন কিংস ইলেভেনকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন দিল্লি অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ার৷ কিন্তু ক্রিস গেইলহীন পঞ্জাবের শুরুটা ভালো হয়নি৷ মাত্র ৩৬ রানে দুই ওপেনার লোকেশ রাহুল ও স্যাম কারেন ডাগ-আউটে ফেরেন৷ তার পর ফর্মে থাকা ময়াঙ্ক আগরওয়াল রান-আউট হয়ে ডাগ-আউটে ফেরায় চাপে পড়ে যায় প্রীতি জিন্টার দল৷ কিন্তু ডেভিড মিলার, সরফরাজ খান ও মনদীপ সিংয়ের লড়াইয়ে লড়াকু স্কোর করে পঞ্জাব৷

৩০ বলে দুই ছক্কা ও চারটি বাউন্ডারির সাহায্যে ৪৩ রানের ইনিংস খেলেন মিলার৷ পঞ্জাব ইনিংসে এটাই সর্বোচ্চ স্কোর৷ ২৯ বলে ৩৯ রান করেন সরফরাজ৷ ছ’টি বাউন্ডারি মারেন তিনি৷ আর ইনিংসের শেষ দু’বলে চার-ছয় মেরে পঞ্জাবের স্কোরকে ১৬৬ রানে পৌঁছে দেন মনদীপ৷ তবে স্বপ্নের বোলিং করে ম্যাচের সেরা কারেন৷ এই জয়ের ফলে নাইটদের পিছনে ফেলে পয়েন্ট তালিকায় দু’ নম্বরে উঠে এল প্রীতির পঞ্জাব৷ আর ৪ ম্যাচে চার পয়েন্ট নিয়ে নাইটদের পিছনে অর্থাৎ পাঁচ নম্বরে চলে গেল সৌরভের দিল্লি৷