সিওল: যার বিরুদ্ধে বারবার অবাধ যৌনাচারের অভিযোগ উঠেছে সেই রাগী একনায়ক শাসক কিম জং উনের নির্দেশে কয়েকজন সরকারি কর্মীকে গুলি করে মারা হলো উত্তর কোরিয়ায়। তাদের বিরুদ্ধে কলেজ ছাত্রীদের কে দেহ ব্যবসায় নামানোর অভিযোগ রয়েছে। তবে প্রতিবারের মতো এবারও নীরব উত্তর কোরিয়া সরকার।

সেখানকার সরকারি কর্মীদের মেরে ফেলার সংবাদ এসেছে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে। একইভাবে আমেরিকান সংস্থা রেডিও ফ্রি এশিয়া দিয়েছে এই খবর। রিপোর্টে বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়ায় ২০-২৫ বছরের তরুণীদের চাকরি এবং নগদ টাকা রোজগারের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেহ ব্যবসার কাজে ব্যবহার করা হয়।

এই কাজে দেশটিতে বিভিন্ন চক্র গড়ে উঠেছে।এতে জড়িত সরকারি কর্মীরা। সেরকমই একটি চক্র থেকে উদ্ধার হওয়া তরুণীরা পুলিশকে জানিয়েছেন, তাদের অধিকাংশই পিয়ংইয়ং বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। অভিযোগ, ওই ছাত্রীদের কাছে টাকা পৌঁছে দেওয়া হতো। এরপর ব্ল্যাকমেল করে দেহ ব্যবসায় নামতে বাধ্য করা হতো।

এমনকি বিদ্যালয়ের ছাত্রীদেরও দেহ ব্যবসার কাজে জোর করা হয়েছে। রেডিও ফ্রি এশিয়ার খবর, ক্ষুব্ধ কিম জং উন কড়া নির্দেশ দেন। অভিযুক্তদের গুলি করে মারা হয় প্রকাশ্যে।রাজধানী পিয়ংইয়ং এর রাস্তায় গুলিবিদ্ধদের মৃতদেহ পড়ে থাকে। ছাত্রীদের নিয়ে দেহ ব্যবসা করানোর ঘটনায় ক্ষুব্ধ কিম।

একনায়ক রাগী শাসকের নির্দেশে এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাইকে খুঁজে বের করার কাজ চলছে। এদিকে বিভিন্ন সময়ে কিম জংয়ের পরিবারের বিরুদ্ধে বারবার অবাধ যৌনাচারের অভিযোগ উঠেছে।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের দাবি, কিম জংয়ের বিলাসবহুল প্রাসাদে রয়েছে এই ব্যবস্থা। তবে সবই উত্তর কোরিয়া সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বলে অভিযোগ পিয়ংইয়ংয়ের।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও