সিওলঃ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্যে ট্রেনে করে ভিয়েতনামের উদ্দেশ্যে রওনা হলেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উন। শনিবার স্থানীয় সময় রাত ৯টায় তিনি চিনের সীমান্তবর্তী শহর ড্যানডং-এ পৌঁছন। ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ে আগামী বুধ ও বৃহস্পতিবার ট্রাম্পের সঙ্গে কিমের দু’দিনব্যাপী দ্বিতীয় শীর্ষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে গত বছরের জুনে দুই নেতার মধ্যে সিঙ্গাপুরে প্রথম বৈঠক হয়েছিল। এরপর ফের দেখা হচ্ছে দুজনের। যদিও হ্যানয় শীর্ষ বৈঠকের বিষয়বস্তু এখনও ঘোষণা করা হয়নি।

উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে শনিবার রাতে কিমের দেশ ছাড়ার খবর জানানো হয়। একই সঙ্গে বলা হয় যে, মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কিম জং-উনের বৈঠক হতে যাচ্ছে। চিনের সঙ্গে ভিয়েতনামের সীমান্ত রয়েছে। তবে ভিয়েতনামে প্রবেশের আগে তার ট্রেনকে চিনের ভেতরে দুই হাজার কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিতে হবে। তিনি মোট তিন হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে হ্যানয়ে পৌঁছবেন। মোট ৬০ ঘন্টা লাগবে বলে জানা যাচ্ছে।

বিমান ভ্রমণের ব্যাপারে কিম পরিবারের অনীহা রয়েছে। কিম জং-উনের পিতা প্রয়াত কিম জং-ইল একাধিকবার ট্রেনে করে চিন সফর করেছেন।

কিমের সফরসঙ্গীদের মধ্যে রয়েছেন তার বোন কিম ইয়ো জং এবং তার অন্যতম প্রধান আলোচক প্রআক্তন জেনারেল কিম ইয়ং চোল।

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার পিছনে আমেরিকার প্রধান লক্ষ্য পিয়ংইয়ংকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করা। অন্যদিকে উত্তর কোরিয়া চায় দেশের ওপর থেকে সব আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাক।

গত জুনের শীর্ষ বৈঠকে দু’পক্ষ মৌখিকভাবে উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে সম্মত হলেও এখন পর্যন্ত এই ব্যাপারে কোনও অগ্রগতি হয়নি। পিয়ংইয়ং অস্ত্র ধ্বংস করার আগে নিষেধাজ্ঞার প্রত্যাহার চায়। অন্যদিকে ওয়াশিংটন বলছে, পরমাণু অস্ত্র পুরোপুরি ধ্বংস করার আগে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার নয়। এই অবস্থায় আসন্ন হ্যানয় বৈঠকে দু’পক্ষ পরস্পরকে কতটা ছাড় দিতে পারে তা দেখার জন্য অপেক্ষা করছেন পর্যবেক্ষকরা।