ঢাকা: আর্থিক দুর্নীতির মামলায় জেলে বন্দি বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর হাত ও পায়ের আঙুল বেঁকে যাচ্ছে বলে দাবি আত্মীয়দের।

বন্দি অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে খালেদা জিয়ার। অভিযোগ, চিকিৎসা হলেও তাঁর হাত ও পায়ের আঙুল বেঁকে যাচ্ছে। উঠে দাঁড়ানোর শক্তি হারিয়ে ফেলেছেন।

বুধবার বেগম জিয়ার বোন সেলিনা ইসলাম ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্য়ালয় হাসপাতালে দিদি খালেদার সঙ্গে দেখা করেন। পরে তিনি দাবি করেন, দ্রুত বিদেশে নিয়ে গিয়ে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসা প্রয়োজন।

বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া দাতব্য সংস্থার আর্থিক দুর্নীতি তথা টাকা তছরুপ মামলা চলছে। বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এই মামলা করে। পরে আদালতের রায়ে জেল হয় খালেদা জিয়ার।

জেলে থাকা অবস্থায় ক্রমে অসুস্থ হয়ে পড়েন বাংলাদেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। তাঁর দল বিএনপি বারে বারে নেত্রীর অসুস্থতার কথা বলে সরকারে থাকা আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

বিএনপির দাবি, জামিন না দিয়ে খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রাখা মানে দেশের বিরোধী রাজনীতির কণ্ঠকে স্তব্ধ করে রাখা। আওয়ামী লীগের তরফে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানান, আইনগত প্রক্রিয়া নিয়ে কোনওভাবেই আদালতের উপর সরকার চাপ তৈরি করবে না।

সাংবাদিকদের সেলিমা ইসলাম বলেন, চিকিৎসকরা নিয়মিত আসছেন। কিন্তু তাঁর চিকিৎসার কোনও উন্নতি হয়নি। উঠে দাঁড়াতে পারছেন না। খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় তৎকালীন বিরোধী নেত্রী তথা আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনার উপর ভয়ঙ্কর গ্রেনেড হামলা হয়। সেই হামলায় অল্পের জন্য বেঁচে যান হাসিনা।

সেই মামলার অন্যতম ষড়যন্ত্রী হিসেবে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন খালেদা পুত্র তারেক রহমান। তিনি লন্ডনে থাকার কারণে বাংলাদেশ সরকার তাঁকে পলাতক ঘোষণা করেছে।