ঢাকা: নির্বাচনে লড়াই করা হচ্ছে না বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার। জেলবন্দি খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হল। তিনটি আসনেই তাঁর মনোনয়পত্র বাতিল করা হয়েছে।

রবিবার সকালে ফেনী-১ আসন ও দুপুরে ‘জিয়া পরিবারের আসন’ হিসেবে পরিচিত বগুড়া-৬ (সদর) ও বগুড়া-৭ আসনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এর মধ্যে বগুড়া-৭ আসনে খালেদা জিয়ার বিকল্প প্রার্থী মোরশেদ মিল্টনেরও মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তবে বাকি দুটো আসনে খালেদা জিয়ার বিকল্প প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

দুটি মামলায় খালেদা জিয়ার শাস্তির কথা উল্লেখ করে ফেনীর রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মহম্মদ ওয়াহিদ উজ জামান রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ফেনী-১ আসনে খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন। খালেদা জিয়া ছাড়াও ওই আসনে বিএনপির আরেক প্রার্থী ছাগলনাইয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি নূর আহম্মদ মজুমদার এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান ও আবুল বাশার চৌধুরীর মনোনয়নপত্রও বাতিল করা হয়েছে। তবে ওই আসনে বিএনপির বিকল্প প্রার্থী রফিকুল আলম মজনুর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

মামলায় সাজার বিষয়টি উল্লেখ করে বগুড়া-৬ ও ৭ আসনে খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন বগুড়ার রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ। বগুড়া-৬ আসনে বগুড়া পৌরসভার মেয়রের পদ থেকে পদত্যাগ না করায় খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এ কে এম মাহবুবুর রহমানের মনোনয়নপত্রও বাতিল হয়েছে। তবে ওই আসনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি রেজাউল করিম বাদশার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

খালেদা জিয়া জেলে থাকলেও তাঁকে তিনটি আসনে প্রার্থী করে বিএনপি। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে জেলে সাজা ভোগ করছেন তিনি। জেলে যাওয়ার আট মাসের মাথায় গত ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। এছাড়া ৩০ অক্টোবর খালেদা জিয়াসহ তিন আসামির সাজা কমানোর আবেদন খারিজ করে দিয়ে খালেদা জিয়ার সাজা বাড়িয়ে ১০ বছর করে হাইকোর্ট।