তিরুঅনন্তপুরম: হাদিয়াকে মনে আছে? যার প্রেম গোটা দেশে আলোড়ন ফেলে দিয়েছিল৷ হিন্দু ঘরের মেয়ে হয়ে মুসলিম ছেলেকে বিয়ে করেছিলেন আখিলা৷ বিয়ের পর নাম হয়েছিল হাদিয়া৷ সেই বিয়ের প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল হিন্দুত্ববাদী নেতারা৷ হাদিয়া পর্বের পর লাভ জিহাদ শব্দের সঙ্গে পরিচয় ঘটে দেশবাসীর৷ সেই হাদিয়ার বাবা কে এম অশোকান নাম লেখালেন বিজেপিতে৷

বাম সমর্থক অশোকান গত সপ্তাহে বিজেপিতে যোগ দেন৷ নেন অনলাইন মেম্বারশিপ৷ মঙ্গলবার কেরল বিজেপির সভাপতি জি গোপালকৃষ্ণণ তাঁর হাতে মেম্বারশিপ কার্ড তুলে দেন৷ গোটা পর্বটি অনুষ্ঠিত হয়েছে সবরীমালা প্রোটেকশন ক্যাম্পে৷ সেখানে রাজ্যের শাসক দলের বিরুদ্ধে বিষেদ্বাগার করে অশোকান বলেন, ‘‘সবরীমালা নিয়ে বামেরা নোংরা রাজনীতি করছে৷’’ তিনি জানান, আনুষ্ঠানিক ভাবে এখন বিজেপিতে যোগ দিলেও গত চার বছর ধরে মনে প্রাণে গেরুয়া৷ তার আগে বামমনোভাবাপন্ন ছিলেন৷

কিন্তু পরবর্তীকালে নানা বিষয়ে বামেদের কাজকর্ম পছন্দ না হওয়ায় ক্রমশ তাদের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেন৷ একদিন রাজ্যবাসীর আস্থা হারিয়ে বামেরা ক্ষমতাচ্যুত হবে৷ এক সর্বভারতীয় মিডিয়াকে হাদিয়ার বাবা বলেন, ‘‘পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরাতে বামেরা হেরেছে৷ কেরলেও তাদের ছুঁড়ে ফেলবে ভোটাররা৷’’ বিজেপি ও কেন্দ্রীয় সরকারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ প্রাক্তন এই সেনাকর্তা জানান, তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে ঋণী৷ সেনা অফিসার ও কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি করেছে৷ যা কংগ্রেস এত বছর ক্ষমতায় থেকেও কিছু করতে পারেনি৷

লাভ জিহাদ ও সবরীমালা এই দুটি ইস্যুতে সবথেকে বেশি সোচ্চার বিজেপি৷ গেরুয়া শিবিরের দিকে ঝুঁকে যাওয়ার ক্ষেত্রে এই দুটি কারণ অনুঘটকের মতো কাজ করেছে বলে মত বিশেষজ্ঞ মহলের৷