তিরুঅনন্তপুরম: নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল কোনওভাবেই কার্যকর হবে না কেরলে, সাফ জানায়িছেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন৷ বিজয়নের দাবি, ভারতীয় সংবিধানের বিরোধী এই নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল৷ কেরল সরকার এই বিলের সম্পূর্ণরূপে বিরোধিতা করছে৷ কেন্দ্রের এই আইন কেরালায় কোনওভাবে প্রয়োগ করা হবে না বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। শীঘ্রই বিল নিয়ে কেরল সরকারের এই অবস্থান কেন্দ্রীয় সরকারকে স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন বিজয়ন৷

কেরলের বাম সরকারের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন আরও বলেন, কেরালায় ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্য কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না৷ সব ধর্মের মানুষের দেশের নাগরিক হওয়ার সমান অধিকার রয়েছে। বিজেপি ও আরএসএস ধর্মের ভিত্তিতে দেশ ভাগ করতে চাইছে বলেও অভিযোগ বিজয়ন সরকারের৷ নাগরিকত্ব বিল পাশ করিয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছে বলেও অভিযোগ কেরল সরকারের৷ কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নের মতে, সংবিধান না মেনেই সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ করিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ নির্দিষ্ট নিয়মেই কেন্দ্রের আইনের বিরুদ্ধে লড়াই জারি থাকবে বলেও জানিয়েছেন বিজয়ন।

বিজয়ন আরও বলেন, দেশভাগের পরে বহু মুসলিম ভারতে থেকে গিয়েছিলেন৷ অনেকে পাকিস্তান থেকেও এদেশে চলে এসেছিলেন৷ ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শ মেনে চলবেন বলেই ভারতে এসেছিলেন তাঁরা৷ বিজয়ের কথায়, ‘বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার দেশের চেহারাকে সংখ্যাগুরুর আধিপত্যবাদী করে তুলছে৷ কেন্দ্রের বদান্যতায় ধর্মের নামে লড়াই করা সাম্প্রদায়িক দেশের পথে আমরা এগিয়ে চলেছি৷’ কেন্দ্রকে কটাক্ষ করে বলেন বিজয়ন৷

তিনি আরও জানান, ভারতে দীর্ঘদিন ধরে জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সব সম্প্রদায়ের নাগরিক শান্তিপূর্ণভাবে বাস করছেন৷ কিন্তু কেন্দ্রের একের পর এক পদক্ষেপ ভারতের সার্বভৌমত্ব নিয়েই প্রশ্ন তুলছে৷ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হওয়ার পর বিশ্বের সামনে লজ্জায় দেশের মাথা নত হয়েছে বলেও দাবি কেরলের মুখ্যমন্ত্রীর৷

সোমবার লোকসভায় পাশ হয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল৷ বিলের প্রতিবাদে সরব হন কংগ্রেস, তৃণমূল-সহ একাধিক রাজনৈতিক দল৷ কেন্দ্র বিভাজনের রাজনীতি করছে বলেও সংসদে অভিযোগ তোলেন বিরোধীরা৷ বিরোধীদের দাবি উপেক্ষা করেই বিল নিয়ে সওয়াল করে চলে সরকার-পক্ষ৷ শেষমেশ গত সোমবার রাত ১২টা নাগাদ লোকসভায় পাশ হয়ে যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল৷ একইভাবে বুধবার রাজ্যসভাতেও সংখ্যাগরিষ্ঠ সাংসদের সমর্থনে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ করিয়ে নেয় কেন্দ্রীয় সরকার৷