তিরুবনন্তপুরম : ই-সিগারেটকে বলা হয় সিগারেটের নেশা কমানোর একটি উপায়। কিন্তু সেই ই-সিগারেট খেয়ে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটাতে পারবেন না কেরলবাসী। কারণ, কেরল সরকার নিষেধাজ্ঞা জারি করে দিল এই ইলেকট্রনিক সিগারেটের উপর।

কেরল সরকারের মতে, তারা পরীক্ষা করে দেখেছে– এই ই-সিগারেট মোটেই সাধারণ সিগারেটের বিকল্প হতে পারে না। তাদের সমীক্ষা আরও বলছে, এই ই-সিগারেট মানব শরীরে মারাত্মক ক্ষতি ডেকে আনবে। হৃদরোগ থেকে ক্যানসার, সবই হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। তাই জনগণের স্বার্থে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।  কেরল রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী, কে কে শৈলজা তাঁর দফতরের সচিবকে এই আদেশ দেন। মন্ত্রী শুধু ই-সিগারেট পান বা বিক্রিতেই নিষেধাজ্ঞা জারি করেননি। নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে ওই সিগারেটের বিজ্ঞাপনেও।

ই-সিগারেট হল এমন একটা জিনিস, যাতে টান দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এর মধ্যে থাকা জলে নিকোটিন গরম হয়ে যায়। কোম্পানিগুলির দাবি, এর ফলে মানব শরীরে সরাসরি নিকোটিন গিয়ে পৌঁছায় না। সেগুলি ফিল্টার হয়ে আসে। তাতে ক্ষতির পরিমাণ নাকি অনেক কম। তাছাড়া একটি সমীক্ষা এও বলছে যে, কেরলে যুবকদের মধ্যে এই ই-সিগারেট খাওয়ার প্রবণতা মারাত্মক হারে বেড়ে গিয়েছিল। সব মিলিয়েই সরকারের এই সিদ্ধান্ত।