তিরুঅনন্তপুরম: দিব্যি চলছিল প্রেস কনফারেন্স। সরকারি বিবৃতি ঘোষণা করছিলেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। করোনা আতঙ্কের জেরে বাড়িতে বসেই কাজ করছেন মুখ্যমন্ত্রী। সরকারি সব নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে বাড়িতে বসেই।

বাড়িতে বসে কাজ করলে খুব স্বাভাবিক ভাবেই অফিসের পরিবেশ পাওয়া যায় না। ফলে কিছুটা হলেও ব্যাঘাত ঘটে কাজের। তারওপর যদি বাড়িতে ছোটরা থাকে, তবে তো কথাই নেই। সেই বিড়ম্বনার মাঝেই পড়লেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর একটি এমনই ছবি ভাইরাল হয়েছে নেট দুনিয়ায়। সোশ্যাল মিডিয়া ট্যুইটারে এই ছবি পোস্ট করেন এক ইউজার। সেখানে দেখা যাচ্ছে, সাংবাদিক সম্মেলন চলার মাঝেই মুখ্যমন্ত্রীর নাতি সেখানে চলে এসে দাদুকে কোনও কাগজ দিচ্ছে। হাসি মুখে সেটি গ্রহণ করছেন মুখ্যমন্ত্রীও।

মুখ্যমন্ত্রীর নাতি ইশানের সঙ্গে এই ছবি ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। পোস্টে লেখা হয়েছে, ওয়ার্ক ফ্রম হোমের কিছু অসুবিধা সকলেই বুঝতে পারছেন। এই অসুবিধা থেকে বাদ যাননি স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীও। প্রতিদিন বিকেলের সাংবাদিক সম্মেলনের মাঝেই আচমকা চলে এসেছে ইশান। উল্লেখ্য ইশান মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নের মেয়ে বীণার ছেলে।

এরই মধ্যে কেরলে করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ৫৬২২। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানাচ্ছে এর মধ্যে ২২৫৪টি অ্যাক্টিভ কেস। মারা গিয়েছেন ২৭ জন। ৩৩৪১ জন মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। করোনা পরিস্থিতি সুষ্ঠু ভাবে সামলানোর জন্য প্রশংসিত হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন।

তবে দেশের পরিস্থিতি একেবারেই ভালো নয়। দেশে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুও। শেষ ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হলেন ২২ হাজার ২৫২ জন। যার ফলে দেশে এখন পর্যন্ত মোট সংক্রমণ ছাড়িয়ে গেল ৭ লক্ষের গণ্ডি। এখন পর্যন্ত দেশে মোট সংক্রামিত হয়েছে ২২ হাজার ২৫২ জন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ৪৬৭ জনের। এরফলে দেশে মোট মৃত্যু বেড়ে দাঁড়াল ২০ হাজার ১৬০ জনের। স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে এখবর জানানো হয়েছে। দেশে এই মুহূর্তে অ্যাক্টিভ কেস রয়েছে ২ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫৫৭ টি। সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা ৪ লক্ষ ৩৯ হাজার ৯৪৮ জন।

অন্যদিকে আগের ২৪ ঘন্টার হিসেবে আমেরিকার থেকেও করোনায় মৃত্যুতে এগিয়ে ভারত। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে যে তথ্য সোমবার সকালে সামনে আনা হয়েছে, তা অনুযায়ী আগের ২৪ ঘন্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৪২৫ জনের। সারা বিশ্বে এই মৃত্যু সংখ্যার নিরিখে এগিয়ে কেবল মাত্র এগিয়ে একটি দেশ। সেটি ব্রাজিল। ২৪ ঘন্টায় সেখানে মৃত্যু হয়েছে ৬০২ জনের।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ