Pinarayi Vijayan

তিরুঅনন্তপুরম : করোনা আক্রান্ত কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন। উল্লেখ্য ৬ই এপ্রিল প্রথম ও শেষ দফার ভোট ছিল কেরলে। সেখানে ভোটও দেন মুখ্যমন্ত্রী। তার দুদিনের মধ্যেই করোনা আক্রান্ত হওয়ার সংবাদ মিলল।

মুখ্যমন্ত্রীর দফতর সূত্রে খবর তেসরা এপ্রিল করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নেন বিজয়ন। তবে তিনি অ্যাসিম্পট্যোম্যাটিক বলে জানা গিয়েছে। সংবাদ সংস্থা পিটিআই এই তথ্য প্রকাশ করে। তাঁকে কোঝিকোড়ের মেডিকাল কলেজে ভর্তি করা হতে পারে। এর আগে তাঁর কন্যা বীণা বিজয়ন ও জামাই পি এ মহম্মদ রিয়াস করোনা আক্রান্ত হন।

৬ই এপ্রিল ভোটের জন্য গোটা রাজ্যের একাধিক জায়গায় সফর করেছেন বিজয়ন। তার ফলেই তিনি আক্রান্ত হয়েছেন বলে মনে করা হচ্ছে। এদিকে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১ লক্ষ ২৬ হাজার ২৬৫ জন। এর ফলে দেশে মোট সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯ লক্ষ ৫ হাজার ২১ জন। করোনার মরণ কামড়ে প্রাণ হারিয়েছে ৬৮৪ জন।

এখনও পর্যন্ত মারা গিয়েছে ১ লক্ষ ৬৬ হাজার ৮৬২ জন।গত ২৪ ঘন্টায় করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৯হাজার ২৫৮ জন। আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার হার অনেকটাই কম।যা রীতিমতন কাঁপুনি ধরাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছে ১ কোটি ১৮ লক্ষ ৫১ হাজার ৩৯৩। গত ২৪ ঘন্টায় ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে ২ কোটি ৯৭ লক্ষ ৯ হাজার ২৯২ জনকে।

মোট আক্রান্তের নিরিখে এরপরই রয়েছে ছত্তিশগড়, কর্ণাটক, উত্তর প্রদেশ, দিল্লি, মধ্যপ্রদেশ। গত ২৪ ঘণ্টায় ছত্তিশগড়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১০ হাজার ৩১০ জন। কর্ণাটকে করোনা আক্রান্ত ৬ হাজার ৯৭৬ জন। উত্তপ্রদেশে করোনা আক্রান্ত ৬ হাজার ২৩ জন। দিল্লিতে করোনা আক্রান্ত ৫ হাজার ৫০৬ জন। মধ্যপ্রদেশে করোনা আক্রান্ত ৪ হাজার ৪৩ জন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।