তিরুঅনন্তপুরম: এইচআইভি সংক্রমণের কারণ কী? বায়োলজির বইয়ের পাতায় খুঁজলে উত্তর মিলবে অনেক৷ কিন্তু চোখ আটকে যাবে একটি কারণ দেখে৷ কেরলের দশম শ্রেণির পাঠ্যবইয়ে এইচআইভির জন্য দায়ী করা হয়েছে প্রাক অথবা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ককে৷

দেশের সবকটি রাজ্যের মধ্যে শিক্ষার হার সবথেকে বেশি বলে গর্ব করে কেরল৷ সেই কেরলের দশম শ্রেণির বায়োলজি পাঠ্যবইয়ে বলা হয়েছে, বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের কারণে এইচআইভি ভাইরাস শরীরে বাসা বাধে৷ এমনকী বিয়ের আগে যৌনসম্পর্ক থাকলে সেখান থেকে যুগলদের মধ্যে ছড়াতে পারে এই মারণ ভাইরাস৷ বইটির প্রকাশক স্টেট কাউন্সিল অফ এডুকেশন রিসার্চ এন্ড ট্রেনিং(এসসিইআরটি)৷

খবরটি প্রকাশ্যে আসে নিউজ মিনিট নামে একটি সংবাদমাধ্যমে৷ রাজ্যের ফালাক্কড জেলার এক চিকিৎসক অরুণ পাঠ্যবইয়ের ওই অংশের ছবি শেয়ার করে ভুল তথ্য তুলে ধরেন৷ এই নিয়ে কেরল জুড়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক৷ তারপরেই নড়েচড়ে বসে রাজ্য শিক্ষা দফতর৷ এসসিইআরটির তরফে ভুলের কথা স্বীকার করে নেওয়া হয়৷ রিসার্চ অফিসার নিশি জানান, আগামী শিক্ষাবর্ষের আগে ভুলটি সংশোধন করে নেওয়া হবে৷

ঘটনা হল ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে বইটির নতুন সংস্করণ প্রকাশ করা হয়৷ তার আগে স্কুলের শিক্ষক ও বিশেষজ্ঞদের একটি দল বইটির ছাড়পত্র দেয়৷ প্রশ্ন উঠছে কী করে এই ভুল তাদের চোখ এড়িয়ে গেল? কেউ কেউ জানাচ্ছেন, বইয়ের আড়ালে নীতিপাঠের জ্ঞান দিতে চাইছে সরকার৷ মজার ছলে কেউ কেউ সোশ্যাল মিডিয়াতে পোস্ট প্রশ্ন করেন, এইচআইভি ভাইরাস কী করে বুঝবে ওই যুগল বিবাহিত না অবিবাহিত? উত্তর অবশ্য মেলেনি৷