একরাশ ঘন ফুরফুরে চুল প্রতিটা মেয়ের স্বপ্ন। কিন্তু এখনকার যুগে দূষণ বাইরের ধূলোবালি এবং এই প্রচণ্ড গরমে সেই সমস্ত চুলের একেবারে বিধ্বস্ত অবস্থা।

তবে লকডাউনে নিজের যত্ন নেওয়ার যে সুবর্ণ সুযোগ এসেছে তা বারবার ফিরে পাওয়া যাবে না। তাই এই সুযোগে নিজের প্রতি নিন সম্পূর্ণ যত্ন।

চুলের বিশেষ যত্ন গরমকালে দরকার নইলে চুল একদিকে যেমন রুক্ষ হয়ে পড়ে তেমনি ঘামে ভিজে ভিজে চুলের গোড়ায় দুর্গন্ধ তৈরি হয় এবং সেখান থেকেই সৃষ্টি হয় খুশকি।

এই সমস্ত সমস্যার সমাধান রয়েছে আমাদের কাছেই।

আরো পোস্ট- পনির ভালোবাসেন…এই রোগগুলি থেকে চিরতরে থাকবেন দূরে

১. অ্যালোভেরা (aloe vera): এটি একটি প্রাকৃতিক কন্ডিশনার। শুধুমাত্র ত্বকের জন্য নয় চুলের যত্নেও এবার অ্যালোভেরার (aloe vera) ব্যবহার শুরু করুন।

চুলের মৃত কোষগুলোকে তুলে ফেলতে সাহায্য করে এটি এবং খুব দ্রুত চুল পড়া থেকে মুক্তি দেয়। চুলের আর্দ্রতা বজায় রাখে।

এছাড়াও রোদের তাপে অনেকের চুলের গোড়ায় ফুসকুড়ি বা চুলকানির (scalp itchiness) মত সমস্যা হয়। সেগুলোর ক্ষেত্রেও অ্যালোভেরা (aloe vera) ব্যবহার করলে সমাধান পাবেন।

২. টি ট্রি (tea tree): গরমকালে চুলের সবথেকে বড় সমস্যা হল চুলের গোড়া তেলতেলে হয়ে যায়। এর ফলে চুলে খুব তাড়াতাড়ি জট পড়ে যায় এবং দুর্গন্ধ হয়।

তাই চুলের গোড়া পরিষ্কার রাখতে চুলের যত্নে অবশ্যই ব্যবহার করুন টি ট্রি (tea tree)। এর মধ্যে কিছু অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল (antibacterial) গুণ রয়েছে যা চুলকে খুশকি থেকে মুক্ত রাখে এবং কোনরকম ইনফেকশন (scalp infectkion) হতে দেয় না চুলের গোড়ায়।

৩. মেন্থল (menthol): এই উপাদানটি চুলের গোড়া যেমন ঠান্ডা রাখে তেমনি চুলের গোড়া খুশকি মুক্ত রাখে। এছাড়াও আমাদের মস্তিষ্কে রক্ত প্রবাহ স্বাভাবিক রাখতে খুব জরুরি উপাদান মেন্থল (menthol)।

এর ফলে (menthol) চুল পড়াও কমে যায় অনেকটাই।

৪. মধু (honey): চুলের আর্দ্রতা বজায় রাখে মধু। এছাড়াও চুলের জেল্লা নষ্ট হতে দেয় না।

তাই চুল বাইরে থেকে ঘন এবং স্বাস্থ্যোজ্জ্বল দেখতে লাগে।

৫. নিম (Neem): এটি একটি আয়ুর্বেদিক উপাদান যার ব্যবহার বহু প্রাচীনকাল থেকে হয়ে আসছে। এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল (antibacterial) গুণের ফলে চুলের খুশকি হয় না এবং চুল থেকে ময়লা তাড়াতাড়ি বেরিয়ে যেতে পারে চুল থেকে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.