নয়াদিল্লি: জম্মু কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদের সাহায্য করছে দেশের বাইরের কোনও শক্তি৷ এমনই দাবি এনআইএ-র আধিকারিকদের৷ এনআইএ-র বিশেষ সূত্র জানাচ্ছে এই অর্থ নিজস্ব প্রয়োজনে ব্যবহার করছে উপত্যকার বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা৷ সন্তানের বিদেশে পড়াশুনা থেকে শুরু করে বিদেশে নিজেদের সম্পত্তির পরিমাণ বাড়ানোর কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে৷

এই বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদের মধ্যে রয়েছেন হুরিয়ত কনফারেন্স নেতা সৈয়দ শাহ গিলানিও৷ এর আগে, বিচ্ছিন্নতাবাদী নেত্রী আসিয়া আন্দ্রাবির সঙ্গে ঘনিষ্ট যোগ রয়েছে পাকিস্তান সেনার, এমনই জানতে পেরেছিল এনআইএ৷ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা আইএসআইয়ের কাছ থেকে কাশ্মীর উপত্যকায় সন্ত্রাস চালানোর জন্য আর্থিক সাহায্যও পায় বলে জানিয়েছিল এনআইএ৷ দিন কয়েক আগেই গ্রেফতার করা হয় এই বিচ্ছিন্নতাবাদী নেত্রীকে৷

এরপরেই শুরু হয় জেরা৷ তারপর উঠে আসে একাধিক তথ্য৷ এনআইএ সূত্র জানায়, আসিয়াকে জেরা করে জানা গিয়েছে কাশ্মীরে লস্কর ই তৈবা ও জামাত উদ দাওয়ার সঙ্গে যোগাযোগ বজায় রাখে এই আসিয়া৷ সেখান থেকেই পাক সেনার একাংশের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা রেখে চলে সে৷ সম্পর্কে এক পাক সেনা অফিসার আসিয়ার আত্মীয় বলে জানা গিয়েছে৷

পাশাপাশি জানা গিয়েছে, হুরিয়ত কনফারেন্সের একাধিক নেতাকে জেরা করা হয়েছে এই আসিয়ার দেওয়া তথ্যসূত্র ধরে৷ পাকিস্তান থেকেই মূলত টাকা আসছে বলে খবর৷ রবিবার এক বিবৃতিতে এনআইএ জানায় আসিয়ার ছেলে জাহুর ওয়াতালির মালেশিয়ায় পড়াশুনার খরচ এসেছিল পাকিস্তান থেকে৷ এই জাহুরও গ্রেফতার হয়েছে হাওয়ালা মামলায়৷ আপাতত দিল্লির তিহার জেলে বন্দী এরা৷

এনআইএ এদিন জানায়, জম্মু কাশ্মীরের শ্রীনগর, অনন্তনাগ ও পহেলগামে ধারাবাহিকভাবে তল্লাশি চলছে৷ বেশ কিছু সন্দেহভাজন হোটেল ও ব্যবসায়ীর বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়৷ ইতিমধ্যেই হাওয়ালা মামলায় ১৩ জন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতার নামে চার্জশিট দেওয়া হয়েছে৷ এদের মধ্যে রয়েছে হাফিজ সইদ, সৈয়দ সালহাউদ্দিনের মতো নেতারা৷

২০১৭ সালের ৩০শে মে যে কয়েকজন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতার বিরুদ্ধে এফআইআর করেছিল এনআইএ, তার মধ্যে অন্যতম ছিল এই আসিয়া৷ ২০১৮ সালেই তাকে দেশদ্রোহের অপরাধে গ্রেফতার করে দিল্লিতে নিয়ে আসা হয়৷ তবে পরে ছাড়াও পেয়ে যায় সে৷

এদিকে, ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হয় এক তালিকা৷ যে তালিকায় রয়েছে কাশ্মীর উপত্যকায় সন্ত্রাস সৃষ্টি করা ১০ মোস্ট ওয়ান্টেড টেররিস্টের নাম৷ তালিকার শীর্ষে রয়েছে হিজবুল মুজাহিদিন জঙ্গি গোষ্ঠীর অন্যতম মাথা ও উপত্যকায় হিজবুলের প্রধান রিয়াজ আহমেদ নাইকুর নাম৷ নাইকু ২০১০ সাল থেকে হিজবুলের সঙ্গে যুক্ত৷ কাশ্মীরে একাধিক নাশকতার সঙ্গে সে জড়িত বলে অভিযোগ৷ এই নামগুলি প্রকাশ করে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইকে আরও সংগঠিত করতে চাইছে ভারতীয় সেনা বলেই খবর৷