শ্রীনগর : গত ৫০ দিনেরও বেশি সময় ধরে গৃহবন্দি কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতারা। তাদের মুক্তি দেওয়ার ব্যাপারে ভাবনা চিন্তা করছে প্রশাসন। এক এক করে মুক্তি পাবেন তাঁরা। বৃহস্পতিবার এমনই জানালেন জম্মু কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্য পাল মালিকের উপদেষ্টা। তিনি জানান, ইতিমধ্যেই জম্মুর বেশ কয়েকজন নেতাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। এবার পালা কাশ্মীরের। এখানকার নেতারাও মুক্তি পাবেন। তবে এক এক করে।

ব্লক উন্নয়ন কাউন্সিলের নির্বাচনী নির্ঘণ্ট ঘোষণার পরেই কাশ্মীরি নেতাদের মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কাশ্মীর পঞ্চায়েতের দ্বিস্তরে রয়েছে এই ব্লক উন্নয়ন কাউন্সিল। নির্বাচন ঘোষণা হওয়ার পর সুস্থ গণতান্ত্রিক পরিবেশ বজায় রাখার স্বার্থেই কাশ্মীরের নেতাদের মুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। বুধবার জম্মুর নেতারা মুক্তি পাওয়ার পরেই রাজ্যপালের উপদেষ্টা ফারুখ খানকে কাশ্মীরের নেতাদের ব্যাপারে প্রশ্ন করা হয়। সাংবাদিকদের সেই প্রশ্নের উত্তরে ফারুখ জানান, এক এক করে প্রত্যেককে মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রাজ্যের প্রায় ৪০০ জন রাজনৈতিক নেতার মধ্যে গৃহবন্দি হয়ে রয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ৮৩ বছরের ফারুখ আবদুল্লা, তাঁর ছেলে ওমর আবদুল্লা ও পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি প্রধান মেহবুবা মুফতি। এদিকে বুধবারই প্রায় দু’মাস পর মুক্তি পান জম্মুর রাজনৈতিক নেতারা। জম্মুতে গৃহবন্দি অবস্থা থেকে যাঁদের মুক্তি দেওয়া হল সেই রাজনৈতিক নেতারা হলেন দেবেন্দর সিংহ রানা, রমন ভাল্লা, হর্ষদেব সিংহ, চৌধুরীলাল সিংহ, ভিকার রসুল, জাভেদ রানা, সুরজিৎ সিংহ স্লাথিয়া ও সাজ্জাদ আহমেদ কিচলু।গত ৫৭ দিন ধরে কাশ্মীর উপত্যকার যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন। নেই ইন্টারনেট পরিষেবাও।