নয়াদিল্লি: ২০০ টি স্কুলের মধ্যে উপত্যকায় খুলল মাত্র ৯৫ টি স্কুল। শ্রীনগরের বিভিন্ন জেলার স্কুল গুলিতে সোমবার থেকে পঠনপাঠনের কাজ পুনরায় চালু করার কথা সরকারি তরফে জানানো হলেও, প্রায় সবকটি বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীর

উপস্থিতিও ছিলও নগণ্য। দু-এক দিনের মধ্যেই উপত্যকাবাসী যাতে আবার স্বাভাবিক ছন্দে ফিরে যেতে পারে তার জন্য সবরকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছে প্রশাসন।

শ্রীনগরের ডেপুটি কমিশনার শাহিদ ইকবাল চৌধুরী সোমবার একটি বৈঠকে জানিয়েছেন, শ্রীনগর সহ জন্মু ও কাশ্মীরের বিভিন্ন জেলায় বন্ধ থাকা স্কুলগুলি সোমবার থেকে আবার নতুন করে পড়াশুনোর কাজ চালু করবে। এছাড়াও গত শনিবার থেকেই আস্তে আস্তে খুলতে শুরু করেছে বিভিন্ন সরকারি অফিস- আদালত, ব্যাংক ও জরুরি পরিষেবাগুলি। ইতিমধ্যে চালু করা হয়েছে কাশ্মীরে টেলিফোন ও ইন্টারনেট পরিষেবা, বাকি পরিষেবাগুলিও আজ কালের মধ্যে চালু করে দেবে সরকার।

ফোন পরিষেবা চালু হলেও এখনও ইনকামিং পরিষেবার সুবিধা পাছেন না শ্রীনগরবাসী। উন্নয়ন পরিকল্পনা সচিব রোহিত কনশাল বলেছেন, শ্রীনগরের ৫০ টি পুলিশ স্টেশনের মধ্যে ৩৫ টি তেই শনিবার থেকেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা যাতে শিথিল করা হয় সেই ব্যপারে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। খবর অনুযায়ী, আস্তে আস্তে চালু হচ্ছে ট্রাফিক ব্যবস্থা ও চালু হতে শুরু করেছে গন পরিবহনের মাধ্যমগুলি। কনশাল আরও জানিয়েছেন, সোমবার থেকেই শহরের দোকানি এবং ব্যবসায়ীরা তাঁদের দোকান -বাজার পুনরায় খোলা শুরু করেছে।

সরকারি সূত্রে জানানো হয়েছে যে, যে সমস্ত ল্যান্ডলাইন এবং ফোর-জি ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রয়েছে সেগুলি এই সপ্তাহের মধ্যেই চালু করে দেবে প্রশাসন।