মুম্বই: কার্তিক আরিয়ানকে বাদ দেওয়া হল ‘দোস্তানা ২’ ছবি থেকে। জানা গেছে দোস্তানা ২-এর স্ক্রিপ্টের কিছু পরিবর্তন নিয়ে ক্রিয়েটিভ টিমের সঙ্গে কার্তিকের কিছু মতপার্থক্য হয়েছিল। এছাড়া কার্তিকের ট্যালেন্ট এজেন্সি তাঁর শুটিংয়ের জন্যে কোন ডেটও দিচ্ছিল না। কার্তিকের পক্ষ থেকে এমন পেশাদারহীনতার পরিচয় পেয়ে করণ জোহারের ধর্মা প্রডাকশন ‘দোস্তানা ২’ থেকে কার্তিককে বাদ দিয়েছে। ভবিষ্যতে কার্তিকের সঙ্গে কোনওদিন কাজ করবেন না বলেও জানিয়েছেন করণ। এই প্রথম এত বড় একটি প্রোডকশন হউস শুটিংয়ের মাঝ পথে তার লিড রোল পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেটি নিঃসন্দেহে একটি বিশাল ব্যপার।

২০১৯-এ করণ ‘দোস্তানা ২’-এর ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু গতবছর মহামারীর কারণে ছবির শুটিং পিছিয়ে যায়। এটি পরিচালনা করছেন কলিন ডি কুনহা। এই ছবিতে রয়েছেন প্রয়াত শ্রীদেবী কন্যা জাহ্নবী কাপুর ও টেলিভিশন অভিনেতা লক্ষ লালবানি। লক্ষের এটি বলিউড ডেবিউ। কার্তিক এই ছবির জন্যে পাঞ্জাবে দুসপ্তাহ শুটিংও করেছিলেন জাহ্নবীর সঙ্গে। কার্তিকের পরিবর্তে ধর্মা প্রোডাকশন কাকে বেছে নেবেন সেটা এখন সময়ের অপেক্ষা। কার্তিকের টিম এখনও এই বিষয়ে মুখ খলেননি। তারা বলেছেন, শীঘ্রই আপডেট দেওয়া হবে।

২০০৮ এর হিট ছবি ‘দোস্তানা’র সিকুয়াল এটি। দোস্তানায় অভিষেক বচ্চন, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও জন এব্রাহাম মুখ্য ভুমিকায় অভিনয় করেছিলেন। গল্পটি ছিল, দুটি ছেলের একটি মেয়ের প্রেমে পড়ার গল্প। এমন গল্প সিনেমায় নতুন না হলেও এই গল্প ছিল একটু ভিন্ন স্বাদের। শ্যাম এবং কুণাল দুই বন্ধু থাকতে আসে নেহার বাড়িতে সমকামী যুগল হিসাবে। ঘটনাচক্রে তারা দুজনই নেহার প্রেমে পড়ে যায়। এদিকে নেহা ভালবাসে তার অফিসের বসকে। বসের ভূমিকায় ছিলন ববি দেওল। শুরুতে এই ছবি কিছুটা বিতর্কিত হলেও বিশাল সাফল্য অর্জন করেছিল।

সম্প্রতি কার্তিক করোনামুক্ত হয়ে আবার কাজে ফিরে তার পরবর্তী ওটিটি মুভির ডাবিং শেষ করেছেন। এছাড়াও হরর কমেডি ‘ভুল ভুলাইয়া টু’ তেও দেখা যাবে কার্তিককে। তার উল্টো দিকে থাকছেন গ্লামারস কিয়ারা আদবানি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.