বেঙ্গালুরু: এবার ওয়ার্ক ফ্রম হোমের সিদ্ধান্ত কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পার। নিজের সরকারি বাসভবনে বসে এবার থেকে কাজ করবেন তিনি বলে জানানো হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর থেকে। দফতরের এক আধিকারিক করোনা আক্রান্ত হওয়ায় এই সিদ্ধান্ত বলে খবর। শুক্রবারই জানা যায় যে, ওই আধিকারিক করোনা আক্রান্ত।

৭৮ বছরের ইয়েদুরাপ্পা সরকারি বাসভবনে বসে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেন। সরকারি বাসভবন কাবেরি থেকেই কাজ চলবে রাজ্য প্রশাসনের। তবে সরকারি বাসভবনে তৈরি হওয়া অফিসের আধিকারিক করোনা আক্রান্ত হন। বাসভবনের অফিস কৃষ্ণা সূত্রে এই খবর মিলেছে।

ইতিমধ্যেই নিজের সব বৈঠক বাতিল করেছেন ইয়েদুরাপ্পা। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কাজ চলছে। ভিডিও কলে চলছে একাধিক প্রশাসনিক বৈঠক। করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলাও করছেন ভিডিও কলের মাধ্যমে।

মুখ্যমন্ত্রীর দফতর থেকে জানানো হয়েছে পরবর্তী নোটিশ না পাওয়া পর্যন্ত দফতরে কর্মীরা আসবেন না। মন্ত্রীদের ক্ষেত্রেও একই নিয়ম জারি করা হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা জানিয়েছেন তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ রয়েছেন। তবে সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরি। তাই দফতর না খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই বার্তা জানিয়ে শুক্রবার একটি ট্যুইট করেন তিনি।

এদিকে, ঝাড়খন্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। নিজের বাসভবনেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন তিনি। যে মন্ত্রীদের সাথে তিনি সাক্ষাত করেছিলেন, তাঁদের একজনের করোনা হওয়ায় হোম কোয়ারেন্টাইনে গেলেন হেমন্ত সোরেন।

বুধবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে ঝাড়খন্ড সরকার জানায়, নিজের উদ্যোগেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন হেমন্ত সোরেন। যাতে তাঁর থেকে কারোর সংক্রমণের ঝুঁকি না থাকে। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে সাধারণের জন্য প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, মঙ্গলবার রাজ্যের মন্ত্রী মিথিলেশ ঠাকুরের সঙ্গে সাক্ষাত করেন মুখ্যমন্ত্রী। তার পরেই মিথিলেশ ঠাকুরের করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে।

তবে শুধু মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনই নন, হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের সব কর্মীই। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই তাঁরা কোয়ারেন্টাইনে গিয়েছেন বলে খবর। বুধবার মুখ্যমন্ত্রীর করোনা পরীক্ষা হয়। তবে তার ফল এখনও জানা য়ায়নি।

মিথিলেশ ঠাকুরের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন। ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার এক বিধায়ক মথুরা মাহাতো করোনা আক্রান্ত। তাঁরও দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ