বেঙ্গালুরু: ২০১৯-এ নরেন্দ্র মোদী যাতে ক্ষমতায় আসতে না পারেন, তার জন্য আন্তর্জাতিক স্তরে ষড়যন্ত্র চলছে। মোদী যাতে আর প্রধানমন্ত্রীর আসনে ফিরতে না পারে, তার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে চিন-পাকিস্তানও। এমনই অভিযোগ আনলেন কর্ণাটকের বিজেপি রাজ্য সভাপতি তথা বিধায়ক সিটি রবি।

সদ্য কংগ্রেস-জেডিএস জোট কর্ণাটকে সরকার গড়া থেকে আটকেছে বিজেপিকে। এই রাজ্যেরই বিজেপির সাধারণ সম্পাদক তথা বিধায়ক সি টি রবি-র দাবি কংগ্রেস আজ একটি মামুলি দলে পরিণত হয়েছে। মোদী ফিভার বা মোদী আতঙ্কেই কংগ্রেস ও আঞ্চলিক দলগুলি বিজেপির বিরুদ্ধে জোট বেধেছে।

তাঁর দাবি, বিরোধী আর পাকিস্তানের চিন্তা-ভাবনার মধ্যে কোনও তফাৎ নেই। ম্যাঙ্গালোরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসে এমনটাই মন্তব্য করেন তিনি। তাঁর মতে, মোদী ক্ষমতায় এলে ভারত আরও শক্তিশালী হয়ে উঠবে। তাই শত্রু দেশগুলি আশঙ্কায় রয়েছে বলে মনে করেন তিনি।

তবে তিনি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানান যে, মোদী ২০১৯-এও প্রচুর আসন পাবে। কর্ণাটকের কংগ্রেস-জেডিএস জোট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা একটা অপবিত্র জোট। আঞ্চলিক দলগুলি সবসময় ক্ষমতালোভী বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।