বেঙ্গালুরু: অভিমন্যু মিঠুনের হ্যাটট্রিক সহ ৫ উইকেট, কেএল রাহুল-ময়াঙ্ক আগরওয়ালের অবিচ্ছেদ্য ১১২ রানের পার্টনারশিপ। বিজয় হাজারে ট্রফির দক্ষিনী ডার্বিতে তামিলনাড়ুকে হারিয়ে খেতাব জিতল কর্ণাটক। বৃষ্টিবিঘ্নিত ফাইনালে শুক্রবার ভি জয়দেবন সিস্টেমে তামিলনাড়ুকে ৬০ রানে হারিয়ে চতুর্থবার শিরোপা জিতল মনীশ পান্ডে নেতৃত্বাধীন কর্ণাটক।

চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে টস জিতে এদিন তামিলনাড়ুকে প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানায় কর্ণাটক। অভিমন্যু মিঠুনের হ্যাটট্রিক সহ ৫ উইকেট সত্ত্বেও স্কোরবোর্ডে ২৫৩ রান তোলে তামিলনাড়ু। সৌজন্যে ওপেনার অভিনব মুকুন্দের ৮৫ ও বাবা অপরাজিতের ৬৬ রান। শুরুতেই ওপেনার মুরলি বিজয় ও রবিচন্দ্রন অশ্বিনের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় তামিলনাড়ু। ০ রানে ফেরেন বিজয়, অশ্বিনের সংগ্রহ মাত্র ৮ রান। ২৪ রানে ২ উইকেট হারানো তামিলনাড়ু ম্যাচে ফেরে চতুর্থ উইকেটে মুকুন্দ ও অপরাজিতের ১২৪ রানের পার্টনারশিপে ভর করে।

৯টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১১০ বলে ৮৫ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মুকুন্দ। ৭ টি বাউন্ডারির সাহায্যে অপরাজিতের ৬৬ রান আসে ৮৪ বল খেলে। শেষদিকে বিজয় শংকরের ৩৫ বলে ৩৮ ও শাহরুখ খানের ২৩ বলে ২৭ রানের দ্রুত ইনিংস তামিলনাড়ুর ইনিংসকে বড় রানের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবার চেষ্টা করলেও স্লগ ওভারে কর্ণাটক বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং বিপক্ষ ইনিংসকে লম্বা হতে দেয়নি। যার মধ্যে সবচেয়ে উজ্জ্বল অভিমন্যু মিঠুন। প্রথম ওভারে মুরলি বিজয় ও ৪৬তম ওভারে বিজয় শংকরকে ফেরানোর পর অন্তিম ওভারের তৃতীয় চতুর্থ ও পঞ্চম বলে যথাক্রমে শাহরুখ খান, এম মহম্মদ ও মুরগান অশ্বিনকে ফিরিয়ে কর্ণাটকের প্রথম বোলার হিসেবে বিজয় হাজারে ট্রফিতে হ্যাটট্রিক সম্পন্ন করেন মিঠুন। এক বল বাকি থাকতেই ২৫২ রানে অল-আউট হয়ে যায় তামিলনাড়ু।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩৪ রানের মাথায় দেবদত্ত পারিক্কলের উইকেট হারাতে হলেও কর্নাটক ইনিংসকে দারুণভাবে এগিয়ে নিয়ে যান জাতীয় দলের দুই ব্যাটসম্যান কেএল রাহুল ময়াঙ্ক আগরওয়াল। তামিলনাড়ু বোলারদের এতটুকু ভয়ঙ্কর হওয়ার সুযোগ না দিয়ে অর্ধশতরান পূর্ণ করেন দুই ব্যাটসম্যানই। ২৩ ওভারে কর্নাটকের রান যখন ১ উইকেট হারিয়ে ১৪৬, তখনই বৃষ্টির কারণে বন্ধ হয়ে যায় খেলা।

এরপর আর খেলা শুরু হওয়ার মত পরিস্থিতি না থাকায় ভিজেডি নিয়মে নিষ্পত্তি হয় ম্যাচের। ৬০ রানে জয়লাভ করে শিরোপা ছিনিয়ে নেয় মনীশ পান্ডের কর্ণাটক। ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন কেএল রাহুল, অন্যদিকে ৭টি চার ও ৩টি ছয়ের সাহায্যে ঝোড়ো ৫৫ বলে ৬৯ রানে অপরাজিত থাকেন ময়াঙ্ক।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।