বেঙ্গালুরু: আবারও বেফাঁস মন্তব্য বিজেপি নেতার৷ সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে একটি মিছিলে অংশ নিয়ে মুসলিম সমাজকে নিয়ে কর্নাটকের বিজেপি নেতার মন্তব্য ঘিরে বিতর্ক ছড়াল৷ নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রথম থেকেই কেন্দ্র বিরোধিতায় সুর চড়াচ্ছে বিরোধীরা৷ সিএএ বাতিলের দাবিতে পথে নেমে আন্দোলনে সামিল বিরোধী একাধিক রাজনৈতিক দল৷ উলটোদিকে সিএএ-র সমর্থনে পথে নেমেছে বিজেপি৷ রাজ্যে-রাজ্যে পথে নেমে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির পক্ষে মিছিল করছেন বিজেপি নেতারা৷

বিরোধীদের আক্রমণ করতে গিয়ে ক্রমেই সীমা ছাড়াচ্ছেন বিজেপি নেতারা৷ এবার তালিকায় নবতম সংযোজন কর্নাটকের বিজেপি নেতা রেণুকাচার্য৷ নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে একটি মিছিলে অংশ নেন এই বিজেপি নেতা৷ সেখানেই তিনি বলেন, ‘মসজিদে অস্ত্র লুকিয়ে রাখে মুসলিমরা’৷ একইসঙ্গে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিক্ষোভকারীদের হুমকিও দিয়েছেন এই বিজেপি সাংসদ৷

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এখনও কেন্দ্র বিরোধিতায় জোরদার আন্দোলন চলছে৷ সিএএ বাতিলের দাবিতে সরব বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির একটি বড় অংশ৷ পশ্চিমবঙ্গ, কেরল-সহ একাধিক রাজ্য সিএএ কার্যকর করবে না বলেও জানিয়েছে৷ শুধু তাই নয় ইতিমধ্যেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিধানসভায় বিল পাশ করিয়েছে কেরল ও পঞ্জাব৷ সোমবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও জানিয়েছেন আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বাংলার বিধানসভাতেও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিল পাশ করানো হবে৷ সিএএ-কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলাও করেছে বামশাসিত কেরল৷

সিএএ নিয়ে যখন কেন্দ্র-বিরোধিতায় ক্রমেই সুর চড়া হচ্ছে, উলটো দিকে তখনই সিএএ-র সমর্থনে পথে নেমেছে বিজেপি৷ রাজ্যে-রাজ্যে চলছে অভিনন্দন যাত্রা৷ সিএএ সম্পর্কে জনসমর্থন বাড়ানোর কাজ করছেন বিজেপির নেতা-মন্ত্রীরা৷ একইসঙ্গে বিরোধীদের একের পর এক তোপ দেগে চলেছেন বিজেপি নেতারা৷ সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসির প্রতিবাদে আন্দোলনের নামে যাঁরা সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করছে তাদের গুলি করে মারার নিদান দিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপ বলেছিলেন, অসম এবং উত্তর প্রদেশে এইভাবেই নাকি আন্দোলন দমন করা হয়েছে।

দিলীপের পর এবার কর্নাটকের বিজেপি সাংসদ রেনুকাচার্য৷ একসময় কর্নাটক সরকারের শুল্ক দপ্তরের মন্ত্রী ছিলেন তিনি। কর্নাটকে সিএএ-র সমর্থনে একটি মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন এই বিজেপি নেতা। সেখানেই তিনি বলেন, ‘‌মসজিদে অস্ত্র লুকিয়ে রাখে মুসলিমরা।’ এরই পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ করতে গিয়ে গুলির শিকার হয়েছেন। তাঁদের কোনওরকম সাহায্য করবে না রাজ্য সরকার।’

ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে বিজেপি নেতা রেণুকাচার্যের এই মন্তব্য৷ বিজেপি নেতার এই মন্তব্যের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন সমাজের বিশিষ্টজনেরা৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ