তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: পরিযায়ী শ্রমিকরা বাড়ি ফিরে একশো দিনের কাজ প্রকল্পে কাজ করতে চাইলে তারা সে সুযোগ পাবেন। সেক্ষেত্রে ব্লক বা জেলা প্রশাসনের কাছে আবেদন করতে হবে।

মঙ্গলবার বাঁকুড়া জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘কর্মদিশা’ প্রকল্পে বিশেষ রোজগার দিবসের অনুষ্ঠানে সিমলাপালে একথা বলেন বাঁকুড়া জেলা পরিষদের ‘মেন্টর’ অরুপ চক্রবর্ত্তী।

প্রসঙ্গত, ‘বাঁকুড়া জেলা প্রশাসন দিচ্ছে ডাক ১০০ দিনের কাজে মহিলারা এগিয়ে যাক’ স্লোগানকে সামনে রেখে স্থায়ী সম্পদ সৃষ্টির উপর জোর দেওয়া হয়েছে।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের মরশুমি ফলের বাগান তৈরি, মাছ চাষের উপযোগী ‘হাপা’ অর্থাৎ ছোটো পুকুর তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এই প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়িত হলে কৃষি নির্ভর এই জেলার আঞ্চলিক অর্থনীতি মজবুত হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

একশো দিনের কাজ প্রকল্পে যুক্ত শ্রমিক লক্ষীকান্ত মাণ্ডি বলেন, লকডাউন পরিস্থিতিতে আমরা বাড়িতে বসে ছিলাম। কাজের সুযোগ ছিলনা। এবার সেই সমস্যা কিছুটা হলেও মিটল বলে তিনি জানান।

একই সঙ্গে এদিন খাতড়া মহকুমা এলাকার ইন্দপুর, হীড়বাঁধে রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা, জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি শুভাশীষ বটব্যাল, খাতড়া ও রানীবাঁধে সভাধিপতি মৃত্যুঞ্জয় মুর্মু বিশেষ রোজগার দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।