মুম্বই: করণ-কার্তিক সম্পর্কে কী পুরোপুরি রকম ছেদ পড়ল। বলিউড মহল সূত্রে, তো এমন খবরই আসছে। কারণ দোস্তানা টু থেকে বাদ দেওয়ার পর এবার কার্তিক আরিয়ানকে ইনস্টাগ্রামে আনফলো করলো প্রযোজক পরিচালক করণ জোহার। এর আগে করণ জোহারের নামে বহুবার শুধুমাত্র স্টার কিডদের বড় পর্দায় সুযোগ দেওয়ার অভিযোগ তুলে নেপোটিজম এর ধারক এবং বাহক বলেছেন অনেক কলাকুশলী। সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর পর অনেকেই করণ জোহারকে দায়ী করেছেন সুশান্তকে এক ঘরে করে দেওয়ার জন্য।

তাহলে কি এবার কার্তিক আরিয়ানকে নিজের প্রযোজনা সংস্থার ছবি থেকে বাদ দিয়ে তাকেও এক ঘরে করে দিতে চাইছেন করণ, এ প্রশ্ন উঠছে নেটিজেনদের মনে। ধর্মা প্রোডাকশন সূত্রে খবর, কার্তিকের অপেশাদার ব্যবহারের জন্যই নাকি মারাত্মক রকম চটেছেন করণ।

জানা যাচ্ছে, ছবির ডেট নিয়ে নাকি দীর্ঘদিন ধরেই নানা রকম ভাবে প্রযোজনা সংস্থাকে নাজেহাল করে তুলেছিল কার্তিক। এমনকি অভিনেতার ট্যালেন্ট এজেন্সিকে বারবার শ্যুটিংয়ের তারিখ নিশ্চিত করবার কথা জানানো হলেও জবাব মেলেনি। ছবির স্ক্রিপ্ট নিয়ে আপত্তি তুলে স্ক্রিপ্টে চেঞ্জ করার কথা বলেন কার্তিক আরিয়ান। শুধু তাই নয় করোনার জন্য তিনি দোস্তানা টু এ, শুটিং এর জন্য ডেট দিতে পারছেন না অথচ হঠাৎ করেই নেটফ্লিক্সের ‘ধামাকা’র শ্যুটিং শুরু করেছিলেন তিনি। জানা যাচ্ছে, অভিনেতার ট্যানট্রামে বিরক্ত হয়েছেন করণ।তাই বাধ্য হয়েই করণ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

২০১৯ সালে কার্তিক আরিয়ান,জাহ্নবী কাপুর, এবং লক্ষ্য লালওয়ানিকে নিয়ে দোস্তানা ২-এর ঘোষণা করেছিলেন প্রযোজক-পরিচালক করণ জোহর। তবে কার্তিক আরিয়ানের জায়গায় কোন অভিনেতাকে নিয়ে আসা হয় তাই আপাতত দেখার। এরই মধ্যে এই বিতর্কে ঘি ঢেলেছেন টুইট কুইন কঙ্গনা রানাউত। তার মতে কার্তিককেও সুশান্ত সিং রাজপুত এর মতন অবসাদের পথে ঠেলে দিচ্ছে স্টার কিডদের গডফাদার করণ জোহর। কার্তিক আউটসাইডার বা তথাকথিত ফিল্মি ব্যাকগ্রাউন্ড এর পরিবার থেকে আসেননি বলেই করণ তাঁর সঙ্গে এই ব্যবহার করছে।  যদিও এ প্রসঙ্গে এখনো মুখ খোলেননি কার্তিক আরিয়ান এমনকি তিনি আনফলো করেনি করণ জোহরকে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.